লন্ডনে সাক্ষাৎকার দেবেন বিএনপির ৩ মেয়রপ্রার্থী


নিউজ ডেস্ক
সত্যবাণী

ঢাকাঃ আগামী বছরের শুরুতে তিন সিটি কর্পোরেশনে ভোট হবার কথা।যদিও আইনি জটিলতা বা অন্য কোনো কারণে নির্বাচন আটকে যাবার শঙ্কা করছেন বিএনপির অনেক নেতা।এরপরেও নির্বাচন নিয়ে প্রস্তুত থাকতে চান তারা।এরই অংশ হিসেবে দলের সম্ভাব্য তিন মেয়রপ্রার্থীকে লন্ডনে এরা হলেন ঢাকা উত্তর সিটির সম্ভাব্য প্রার্থী তাবিথ আউয়াল,দক্ষিণের ইশরাক হোসেন এবং চট্টগ্রামের শাহাদাত হোসেন।পর্যায়ক্রমে তিন সম্ভাব্য প্রার্থীই দেখা করবেন তারেকের সাথে।তাছাড়া কাউন্সিলর প্রার্থী হিসেবে কাদের বেছে নেয়া হবে তা সে বিষয়েও মেয়র পদপ্রার্থীদের মতামত নেয়া হবে বলে জানিয়েছে দলীয় সূত্র।ঢাকা উত্তরের গত নির্বাচনেও প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন তাবিথ আউয়াল।গত আগস্টেই তাকে আবার প্রস্তুতি নিতে বলেন তারেক রহমান।আজ সকালে লন্ডনের উদ্দেশে রওনা দেবার কথা রয়েছে তার।নির্বাচন হবে কিনা,আবার হলেও ভোটাররা ভোট দিতে পারবেন কিনা তা নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করেন তিনি।তবে নিরপেক্ষ ভোট হলে যিনিই ধানের শীষের প্রার্থী হবেন তাকেই ভোটাররা বেছে নেবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

প্রস্তুতিতে কোনো কমতি হবে না উল্লেখ করে চট্টগ্রামের সম্ভাব্য প্রার্থী শাহাদাত হোসেন জানান,দল নির্বাচনে অংশ নিলে তিনি প্রার্থী হবেন।আর অতীতে যেভাবে ভোট ডাকাতি হয়েছে তারও বিহীত করতে হবে বলে জানান তিনি।বর্তমানে ঢাকা উত্তর,দক্ষিণ ও চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের তিন মেয়র পদই আওয়ামী লীগের দখলে রয়েছে।তবে বিএনপি নেতাদের দাবি,দিন দিন দলের জনপ্রিয়তা বাড়ছে।সাদেক হোসেন খোকার জানাজায় মানুষের ঢল তারই প্রমাণ।বিএনপির নির্ভরযোগ্য সূত্র জানিয়েছে,ঢাকা দক্ষিণের বেশিরভাগ ভোটারই স্থানীয় বাসিন্দা হওয়ায় সেখানে স্থানীয় প্রার্থীই চায় বিএনপি।তবে স্থানীয় বাসিন্দা বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস বা তার স্ত্রী মহিলা দলের সভাপতি আফরোজা আব্বাসে নির্বাচনে আগ্রহী নন।এর প্রক্ষিতে সদ্যপ্রয়াত সাদেক হোসেন খোকার ছেলে ইশরাক হোশেনকে সবুজ সংকেত দিয়েছে বিএনপি।ইশরাক হোসেনও জানান,দলীয় মনোনয়ন পেলে তিনি নির্বাচন করতে প্রস্তুত।

তবে দক্ষিণে প্রার্থী হতে আগ্রহী বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব হাবিব উন নবী খান সোহেল।বিএনপির শীর্ষস্থানীয় এক নেতা জানান, প্রার্থিতার ব্যাপারে তারেক রহমানের সিদ্ধান্ত পরিবর্তনের জন্য কাজ করে যাচ্ছে দলের একটি বড় অংশ।এদিকে চট্টগ্রামে শাহাদাত হোসেনকে প্রার্থী করার একটি সিদ্ধান্ত থাকলেও প্রার্থিতার দৌড়ে আরো আছেন কারাবন্দি বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব আসলাম চৌধুরী, মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম বকর ও চট্টগ্রাম দক্ষিণ বিএনপির আহ্বায়ক আবু সুফিয়ানও।মইনউদ্দীন খান বাদলের মৃত্যুতে শূন্য হওয়া চট্টগ্রাম-৮ আসনের উপনির্বাচনে আবু সুফিয়ানকে প্রার্থী করা হবে বলে জানা গেছে।এ বিষয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বরচন্দ্র রায় বলেন,দল যেহেতু নির্বাচনে অংশ নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে,প্রার্থী বাছাই খুবই স্বাভাবিক। সময় সুযোগ বুঝেই তারা চূড়ান্ত প্রার্থীর নাম ঘোষণা করা হবে।খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলনকে অগ্রাধিকার দেওয়ার পাশাপাশি দল পুনর্গঠনেও তারা কাজ করছেন বলে জানান গয়েশ্বর।কেছেন দলটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.