আমাদের সবাইকে এর মূল্য দিতে হবে


 ইমতিয়াজ মাহমুদ

যেদেশে একজন শিল্পীকে তাঁর ইচ্ছেমত গাইবার জন্যে প্রাণ হারানোর ভয়ে মাফ চাইতে হয় সেটি কোন সভ্য দেশ নয়। গণতন্ত্র মানবাধিকার বাক ও চিন্তার স্বাধীনতা এইসব তো অনেক বড় বড় কথা। ন্যুনতম সভ্যতার চিহ্নও যদি দেশে থাকে তাইলে সেদেশে একজন শিল্পীকে এইরকম অবমাননা সহ্য করতে হয় না। আমাদের এদেশের পালাগান শিল্পী রিতা দেওয়ান কি বলেছিলেন তাঁর গানে সেটি গুরুত্বপূর্ণ নয়। কথা হচ্ছে কি মাত্রার হুমকি হলে, আতঙ্কের তীব্রতা কিরকম হলে একজন শিল্পীকে অন রেকর্ড হাত জোড় করে মাফ চাইতে হয়!

আমি হতভাগা, আমি সেই ভিডিওটি দেখেছি ইউটিউবে। অসহায় কুকুরছানার মত আমি চেয়ে চেয়ে দেখেছি একজন শিল্পী হাত জোড় করে মাফ চাইছেন তাঁর গানের জন্যে। নপুংশকের মত দেখেছি শিল্পীর দুই শিশু কন্যা অসহায় ছলছল চোখে হাত জোড় করে সকলের কাছে মায়ের হয়ে মাফ চাইছে। আপনাদের এই ভিডিও দেখবার দরকার নেই। আপনারা রাজনৈতিক দল করেন, টেলিভিশন দেখেন, সাংস্কৃতিক জোট করেন, বই মেলা করেন- কতো কিছু করার আছে আপনাদের। একজন শিল্পীর এইরকম অসহায় অবমাননা দেখা আপনাদের দরকার নাই।

এই পোড়ার দেশে সরকার আছে, পুলিশ আছে, মিলিটারি আছে- এরকম কতো কিছু। ওদের কতো কাজ! একদল হিংস্র কুকুর একে একে আমাদের শিল্পীদের কণ্ঠ চেপে ধরছে, ওদেরকে জেলে পুরছে, ওদেরকে হত্যা করছে- এইসব দেখার সময় নেই আপনাদের। বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবার্ষিকীতে আমাদের দেশের বাউল শিল্পী পালাকার এদেরকে হুমকি দিচ্ছে একদল লোক নিতান্ত গানের কথার জন্যে। এইসব দেখার সময় নেই আপনাদের। দেশকে ওরা টেনে অন্ধকারে নিয়ে যাচ্ছে- আপনারা চেয়ে দেয়ে দেখতে থাকেন।

একটা কথা বলি- মেহেরবানী করে কিছু মনে করবেন না যেন। আপনারা আসলে আমাদের বুদ্ধিজীবী ঘাতকদের দলের লোক। কাদের মোল্লা আর দেইল্যা রাজাকারদের পক্ষের লোক আপনারা। স্বাধীন চিন্তা আর স্বাধীনভাবে কথা বলার বিপক্ষে যারা ওরা কাদের মোল্লার দলের না তো কি? শিল্পীকে যারা ইচ্ছা মত গান করতে দেয় না ওরা কোন পক্ষের লোক সেটা কি কঠিন যুক্তি দিয়ে বুঝাতে হবে? শিল্পীদের যারা হত্যা করতে চায় আপনারা তো তাদের পক্ষের লোক।

একজন শিল্পী আতঙ্কে আর প্রাণভয়ে থাকে, তাঁর পাশে কাউকে পায় না। তাঁর সন্তান আর সংসার নিয়ে সে কি করবে? তীব্র আতঙ্কে তাঁকে মাথা নত করতে হয়। আপনারা এগুলি চেয়ে চেয়ে দেখেন।

এই যে আজকে রিতা দেওয়ানের পাশে আপনারা দাঁড়ালেন না, রিতা দেওয়ানকে সাহসটুকু দিতে পারলেন না, রিতা দেওয়ানকে নতজানু হতে হল- এর মূল্য আমাদেরকে দিতে হবে। আমাদের সবাইকে এর মূল্য দিতে হবে। দেশকে ওরা অন্ধকারে টেনে নিয়ে যাবে- দেখবেন। আপনিও একদিন এরকম মাফ চাইবেন। নাকি কে জানে, হয়তো ভিতরে ভিতরে আপনিও মাফ চেয়ে ওদের কাছে দাসখত দিয়ে বসে আছেন!

লেখক: আইনজীবী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.