প্রবাসীদের বর্ণিল অংশগ্রহণে কানাডা’র জন্মদিন উদযাপন


Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

সদেরা সুজন
সত্যবাণী

সিবিএনএ, কানাডা থেকে: কানাডার ১৫০তম শুভ জন্মদিনে কানাডার বিভিন্ন প্রভিন্সের শহরে শহরে মূলধারার সঙ্গে প্রবাসীদের অংশগ্রহণ ছিলো দেখার মতো। মন্ট্রিয়ল, টরেন্টো, অটোয়া, ভেঙ্কোবার, মেনিটোবা, সাচকাচুয়ানসহ বিভিন্ন শহরে কানাডার ১৫০তম শুভ জন্মদিন আনন্দ উল্লাসে পালন করেছে প্রবাসীরা। এক্ষেত্রে জন্মদিন উদযাপন অনুষ্ঠানে মূলধারার সঙ্গে প্রবাসীদের সম্পৃক্ততা নতুন মাত্রা যোগ করে। অন্যান্য বছর শুধু কয়েকটা শহরে প্রবাসীরা অংশগ্রহণ করলেও এবছর ব্যাপকভাবে তারা অংশগ্রহণ করেছেন বিভিন্ন প্রভিন্সে।

বাংলা ক্যারাভানপহেলা জুলাই কানাডা দিবসে বিগত বছরের মত কানাডার রাজধানী অটোয়ায় ‘বাংলা ক্যারাভান’ বিপুল উতসব-আমেজে পালন করে কানাডার ১৫০ তম জন্মদিবস। বাঙালির ঐতিহ্যবাহী ঢোল, মৃদঙ্গ, শিঙ্গা, দুমুরু ইত্যাদি বাদনযন্ত্র সহযোগে পোষ্টার-ফেস্টুন ও বাঙালির চিরাচরিত মঙ্গল-শোভাযাত্রা ধারণ করে বিপুল সংখ্যক বাঙালি অটোয়ার রাজপথে বর্ণাঢ্যে রেলিতে অংশগ্রহণ করেন। এতে অংশগ্রহণ করেন অটোয়া -ভেনিয়ার এম পি পি নাটালি দেজ রোসিয়ার্স, বাংলাদেশ হাইকমিশন প্রতিনিধি দেওয়ান মাহমুদ প্রমুখ ।

19679545_1980564555302539_338356433_nআমরা পরীজায়ী বাঙ্গালির ধাত্রীভূমি, আর এদেশে জন্মনেয়া আমাদের নতুন প্রজন্মের গরিয়সী জন্মভূমি কানাডার জন্মদিবসে বহুজাতিক সংস্কৃতির মিছিলে প্রবাসী বাঙ্গালির আনন্দঘন অংশগ্রহণ বিপুল গৌরবের বাঙ্গালিপনায় মশগুল করে রাখে বহুজাতিক সংস্কৃতির কানাডার জন্মদিবসের উৎসবকেন্দ্র অটোয়ার পার্লামেন্ট চত্বর। ‘বাংলা ক্যারাভান” রাজধানী অটোয়ায় নৃ্তাত্ত্বিক বাঙালির আত্মপরিচয় নির্মাণের বাতিঘর হিসেবে বাংলাদেশ, পশ্চিমবঙ্গ, ত্রিপুরা, আসাম-যে অঞ্চল থেকেই আসা হোক না কেন নৃ্তাত্তিক জাতিসত্বায় সবাই এখন ক্যানাডিয়ান বাঙালি বা অন্যনামে বিশ্ববাঙালি –এই সত্যটাই প্রমাণ করে। ভাষা, সংস্কৃতি, আচার, লোকাচারে সকলেই একই সুতোয় গাঁথা। এই দেশে ঐতিহ্যময় বাঙালি সংস্কৃতি ও কৃষ্টির যথাসম্ভব আয়োজন নিয়ে বাংলা ক্যারাভান করে শোভাযাত্রা রাজধানী অটোয়ার রাজপথে। এই শহরের অভিবাসী বাঙালি সমাজসহ যেসব বাঙালি আসেন অন্যান্য পাশ্ববর্তী শহরগুলো থেকে ক্যানাডা দিবসের মুলধারার জমকাল অনুষ্ঠানাদি উপভোগ করতে, তাঁদের সকলের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করে বাংলা ক্যারাভান বাঙালির এই আনন্দ উৎসবের মঙ্গল শোভাযাত্রায়। গত বছরের সাফল্যময়তারই ধারাবাহিকতায় বাংলা ক্যারাভান নামের এই অসাম্প্রদায়িক সংগঠনটি সকল বাঙালির কোলাহলে বা অংশগ্রহণে এবারের আয়োজনে যোগ করে বহুবিধ বর্ণিল মাত্রা। কানাডা দিবসে এদেশের বহুধা সংস্কৃতির মূলধারায় বাঙালিরা এই বছরে যোগ করে বাঙালি সংস্কৃতি আর লোকমানসের গৌরবময় কিছু মহার্ঘ। বাংলা ক্যারাভানের উদ্যোক্তারা আবেদন করেন, এই আনন্দের সংবাদটি সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে শেয়ার করে আপনার পরিবার ও বন্ধুসভার সকলের কাছে পৌঁছে দিয়ে সকলের অংশগ্রহণের সংবাদটি ঘরে ঘরে পৌঁছে দিয়ে আগামী দিনে বাংলা ক্যারাভানের অমৃতযাত্রায় সহায়তা করতে। ‘বাংলা ক্যারাভান’ নৃতাত্ত্বিক বাঙালির প্রাণের মেলা, কানাডা দিবসের রেলিতে সকল প্রবাসীর সরব অংশগ্রহণ তুলে ধরে গর্বিত সংস্কৃতি-কৃষ্টির ঐতিহ্য ধাত্রীভূমি কানাডার মূলধারায় তুলে ধরা হয়েছে তা কম কিসে!

১৫০তম কানাডার শুভ জন্মদিনে ম্যারাথন বৃষ্টির মধ্যেও মন্ট্রিয়লের প্যারেডে অংশগ্রহণ করে কানাডা-বাংলাদেশ সলিডারিটির সদস্যরা। বাংলাদেশের পতাকা, শরীরে লাল-সবুজের পতাকাখচিত টিশার্ট সালোয়ার-কামিজ পরে বাংলাদেশের গান গেয়ে আনন্দ উল্লাসে অংশগ্রহণ করেছে কানাডা দিবসের রেলীতে। এছাড়া কানাডার অন্যান্য শহরেও প্রবাসীদের অংশগ্রহন ছিলো দেখার মত।

Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *