কলেজছাত্রীকে তুলে নিয়ে ধর্ষণ!


Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

সত্যবাণী ডেস্ক: নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে বখাটের কুপ্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় এক কলেজছাত্রীকে তুলে নিয়ে গণধর্ষণের  অভিযোগ পাওয়া গেছে। বৃহস্পতিবার বিকেলে উপজেলার ভোলানাথপুর এলাকায় এ গণধর্ষণের  ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। অভিযোগের ভিত্তিতে শুক্রবার বিকেলে আলমাছ নামে এক যুবককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।
রূপগঞ্জ থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) রফিকুল ইসলাম জানান, উপজেলার পার্শ্ববর্তী আমিরজান স্কুল এন্ড কলেজের একাদশ শ্রেণীর শিক্ষার্থী  প্রতিদিন নিজ এলাকা ভোলানাথপুর থেকে  কলেজে আসা-যাওয়ার পথে একই এলাকার বখাটে কাউসার, নুরে আলম ও জুলহাস প্রায় সময়ই কুপ্রস্তাব দিতো। এ ঘটনা শিক্ষার্থী তার পিতাকে জানায়। শিক্ষার্থীর পিতা ঘটনাটি বখাটে কাউছারের পরিবারকে জানালে বখাটে কাউছার ক্ষিপ্ত হয়। এরই জের ধরে পরে বৃহস্পতিবার বিকেলে ওই শিক্ষার্থী কলেজ ছুটির পর নিজ বাড়ি  ফেরার পথে ভোলানাথপুর এলাকার দিলুর ছেলে নূর আলম, হিরন মিয়ার ছেলে জুলহাস, গোলজার হোসেনের ছেলে মনির হোসেন, হান্নানের ছেলে নয়ন, হিরন মিয়ার ছেলে আলমাছ শিক্ষার্থীর পথরোধ করে জোরপূর্বক পূর্বাচল উপশহরের ৯নং সেক্টরের ২৭ নং রোড়ের ৪নং প্লটের একটি নির্জন স্থানে নিয়ে যায়। পরে বখাটেরা ওই ছাত্রীকে পালাক্রমে গণধর্ষণ করে ফেলে রেখে যায়। গুরুতর অবস্থায় স্থানীয়দের সংবাদের ভিত্তিতে থানা পুলিশ শিক্ষার্থীকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। ওই ছাত্রীর শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় শুক্রবার সকালে তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টার (ওসিসি)তে ভর্তি করা করানো হয়। এ ঘটনায় ওই শিক্ষার্থীর পিতা বাদী হয়ে শুক্রবার দুপুরে রূপগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। বিকেলে ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে আলমাছ নামে এক যুবককে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এ ব্যাপারে রূপগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ ঈসমাইল হোসেন বলেন, ঘটনাটি খুবই মর্মান্তিক ও ন্যাক্কারজনক। এঘটনায় থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। অভিযোগের ভিত্তিতে এক যুবকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাকিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *