বিদায় সালেহ চৌধুরী


Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

Riton লুৎফর রহমান রিটন

আমাদের সেরা মানুষগুলো একে একে চলে যাচ্ছেন। একটি শোকের অশ্রু মুছতে না মুছতে আরেকটি শোক সংবাদ এসে হানা দেয়। আজ চলে গেলেন মুক্তিযোদ্ধা-সাংবাদিক সালেহ চৌধুরী। মরণব্যাধী ক্যান্সার তাঁকে কেড়ে নিয়েছে। ১৯৭১ সালে সিলেটের সুনামগঞ্জের হাওর অঞ্চলে সংগঠিত সমস্ত গেরিলা যুদ্ধের অন্যতম প্রধান সংগঠক ছিলেন সালেহ চৌধুরী। একাত্তরের অমর শহিদ জগতজ্যোতি দাসের ‘দাসপার্টি’ও ছিলো সালেহ চৌধুরীরই অধীনে। দৈনিক বাংলায় কাজ করেছেন দীর্ঘদিন। প্রাণবন্ত আড্ডাবাজ সালেহ চৌধুরী ছিলেন বিখ্যাত দাবারু নিয়াজ মোরশেদের অন্যতম মেন্টর। হুমায়ুন আহমেদের সঙ্গে তাঁর সখ্য কিংবদন্তিতূল্য। হুমায়ুন তাঁকে নানাজী ডাকতেন। ছড়া লিখতেন। ছবি আঁকতেন। মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচারণমূলক বইও লিখেছেন।

IMG_5561
চ্যানেল আই স্টুডিওতে ‘শ্রদ্ধায়’ অনুষ্ঠানে সালেহ চৌধুরীর সাক্ষাতকার নিচ্ছেন লুৎফুর রহমান রিটন।               আলোকচিত্র: শাহীনুর আহমেদ

আমার প্রতি তাঁর মমতা আর ভালোবাসা ছিলো অফুরন্ত। তাঁর সঙ্গে শেষ দেখা গত বছর ডিসেম্বরে। (২৭ ডিসেম্বর ২০১৬) দুপুরে চ্যানেল আই স্টুডিওতে ‘শ্রদ্ধায়’ অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত অতিথি হিশেবে এসেছিলেন প্রখ্যাত সাংবাদিক মুক্তিযোদ্ধা সালেহ চৌধুরী। সেদিন কতো কথাই না বলেছেন সালেহ ভাই। শৈশব কৈশোরের কথা, সোনালি যৌবনের কথা, মুক্তিযুদ্ধের কথা, অমর শহিদ জগতজ্যোতি দাসের কথা। শামসুর রাহমান, নিয়াজ মোরশেদ, হুমায়ুন আহমেদের কথা। সেদিন ধারণ করা পর্বটি এখনো প্রচারিত হয়নি।

‘শ্রদ্ধায়’ অনুষ্ঠানের প্রচার তারিখ নির্ধারিত হবে অদূর ভবিষ্যতে।

লেখক: বাংলা সাহিত্যের কিংবদন্তী ছড়াকার

Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *