কাতালুনিয়ান গণভোটের বিরুদ্ধে গণ ঐক্যের ডাক


Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

কবির আল মাহমুদ
সত্যবাণী

মাদ্রিদ, স্পেন থেকে: স্বাধীনতার প্রশ্নে গত সপ্তাহে কাতালুনিয়ায় অনুষ্ঠিত গণভোটের বিপক্ষে বিক্ষোভ করছে অখণ্ড স্পেনের সমর্থকরা। গণভোটের আগে বার্সেলোনায় হওয়া বিশাল সমাবেশের মত এবার মাদ্রিদ ও অন্যান্য শহরে হয়েছে সমাবেশ।
শনিবার (৭ অক্টোবর) স্পেনের স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চল কাতালোনিয়ার স্বাধীনতার বিপক্ষে জনগণকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহবান জানিয়ে অনুষ্টিত হয় সমাবেশ।
কাতালোনিয়ার স্বাধীনতার জন্য গত রোববারের বিতর্কিত গণভোটের বিরুদ্ধে স্পেনকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহবান জানিয়ে হাজার হাজার স্প্যানিশ জনগণ সমবেত এতে। তারা স্পেনের দ্বি-খন্ডতার বিরোধীতা করে 8CE857ED-2280-4B29-8F4E-F1B6885676ADকাতালানিয়ানদের আলোচনায় বসার আহবান জানান।
কাতালানকে স্বাধীনতা থেকে বিরত আহবান জানিয়ে মানববন্ধনও করে তারা দেশজুড়ে আরো বিক্ষোভের ডাক দিয়েছেন। একই সাথে স্পেনের বার্সেলনাসহ বিভিন্ন শহরেও অনুষ্ঠিত হয় বিক্ষোভ। ঐসব সমাবেশ থেকে রাজনৈতিক সংলাপে বসে চলমান সংকট সমাধানের আহবান জানানো হয়।
এ সময় স্পেনের হাজারো বিক্ষোভকারী সাদা পোশাকে রাজপথে সমবেত হন। তাদের একটাই দাবি স্পেনের অখন্ডতা। ব্যানার ও ফেস্টুন হাতে নিয়ে সমবেত হন তারা।
এসব ব্যানারে লেখা ছিল ‘স্পেন ইজ বেটার দ্যান ইটস লিডার’ ‘লেটস টক’ । তারা কাতালানের নেতাদের স্বাধীনতার সিদ্ধান্ত ভেবে চিন্তে নেয়ার আহবান জানান।
রাজনৈতিক অস্থিরতায় সব ধরনের ব্যবসায প্রতিষ্ঠান কাতালান ত্যাগ করছে। স্পেনের বৃহত্তম ব্যাংক লা কাইসা ফাউন্ডেশনও কাতালান থেকে তাদের সদর দফতর স্থানান্তরের অপেক্ষায় রয়েছে।
B4764BED-7D69-4B47-A5FA-0279724055B1কাতালানের আঞ্চলিক প্রেসিডেন্ট চার্লস পুইজমেন্ট স্বাধীনতার ঘোষণার পরই স্থানান্তর করে পালমা ডি মালোরকাতে নিয়ে যাওয়া হবে লা কাইসা ফাউন্ডেশন। গত রোববার প্রায় ২৩ লাখ মানুষের মধ্যে ৯০ শতাংশ কাতালানিয়ান স্বাধীনতার পক্ষে ভোট দেন।
স্পেনিশদের দাবি, কাতালোনিয়ার স্বাধীনতার প্রশ্নে আয়োজিত গণভোট অসাংবিধানিক। ফলে এ বে আইনি পদক্ষেপের বিরুদ্ধে স্পেনের অখণ্ডতা রক্ষায় তারা রাজপথে নেমেছেন। কাতালোনিয়া রক্ষার দাবীতে বিক্ষোভ সমাবেশ অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছেন স্পেন ভাঙ্গন বিরোধী বিক্ষোভকারীরা। তবে
এই বিক্ষোভের চূড়ান্ত দিনক্ষণ এখনও ঘোষণা করা হয়নি। তবে স্পেনের ক্ষমতাসীন দলের নেতৃস্থানীয় পর্যায় থেকে আভাস মিলেছে, ৯ অক্টোবর কাতালোনিয়ার পার্লামেন্ট সেশনের আগে আরো বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হতে পারে।
কাতালুনিয়া ও মাদ্রিদের মধ্যে চলমান টানাপোড়েনের কারণে এরই মধ্যে বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠান তাদের সদরদপ্তর ও নিবন্ধিত অফিস বার্সেলোনা থেকে সরিয়ে নেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।
রাষ্ট্রদ্রোহীতার অভিযোগে মাদ্রিদের জাতীয় অপরাধ আদালতে কাতালান পুলিশপ্রধান জোসেপ লুইজ ত্রাপেরোর বিচার শুরু হয়েছে।

 

Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *