ভারতে মেয়ের হত্যাকান্ডে খালাস পেলেন বাবা-মা


Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ ভারতের বহুল আলোচিত আরুশি তালওয়ার হত্যাকাণ্ডের মামলা থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে তাদের বাবা মাকে। এলাহাবাদ হাইকোর্ট বৃহস্পতিবার  রায়ে বলেছে তারা ওই ডাক্তার দম্পতি, রাজেশ ও নুপুর তলোয়ারকে ‘বেনিফিট অব ডাউট’ দিচ্ছেন, কারণ তদন্তকারী সংস্থা সিবিআই সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণ করতে পারেনি যে ওই অপরাধ তারাই করেছিলেন।

ওই দম্পতির বিরুদ্ধে সিবিআই যে সব তথ্যপ্রমাণ পেশ করেছিল, তার সবই ‘পারিপার্শ্বিক’ বলে আদালত এদিন মন্তব্য করেছে। ২০০৮ সালের গোড়ার দিকে দিল্লির উপকণ্ঠে নয়ডার অভিজাত এলাকার একটি ফ্ল্যাট থেকে প্রথমে আরুশির মৃতদেহ ও তার চব্বিশ ঘন্টার মধ্যে ওই ফ্ল্যাটেরই ছাদ থেকে তাদের অনেক বছরের গৃহপরিচারক হেমরাজের মৃতদেহ উদ্ধার হয়। এই জোড়া হত্যাকাণ্ডে ভারতের ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মাধ্যমে ব্যাপক তোলপাড় তোলে। এই হত্যাকাণ্ডকে কেন্দ্র করে দুটি বলিউড সিনেমা পর্যন্ত তৈরি হয়ে গেছে। অনুসন্ধানী সাংবাদিক অভিরুক সেন এই ঘটনা নিয়ে একটি বই-ও লিখেছেন।

দফায় দফায় তদন্ত, আদালতে দেশি-বিদেশি বিশেষজ্ঞদের সাক্ষ্য ও দীর্ঘ শুনানির শেষে ২০১৩ সালের নভেম্বরে সিবিআই আদালতের বিচারক রায় দিয়েছিলেন ওই ঘটনায় আরুশির বাবা-মাই দোষী।তাদের যাবজ্জীবন কারাদন্ডের সাজাও দেওয়া হয়। কিন্তু আজ এলাহাবাদ হাইকোর্টে নিম্ন আদালতের দেওয়া সেই রায় খারিজ হয়ে গেছে। সে দিন থেকেই তালওয়ার দম্পতি দিল্লির কাছে উত্তরপ্রদেশের ডাসনা জেলে বন্দী জীবন কাটাচ্ছিলেন।তবে এখন তারা অচিরেই মুক্তি পেতে চলেছেন। এই মামলার তদন্তকারী সংস্থা সিবিআই বলেছে, তারা এর বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে আপিল করবে কি না তা রায় খুঁটিয়ে পড়ে দেখার পরই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

গত চার বছর ধরে জেল খাটা নূপুর তালওয়ারের বৃদ্ধ বাবা-মা আজকের রায়কে স্বাগত জানিয়ে বলেছেন তারা দেশের বিচারবিভাগকে কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছেন। তবে মঙ্গলবারের রায়ের পরেও আরুশি-হেমরাজের হত্যাকারী কারা, তার উত্তর কিন্তু আদৌ মিলল না এবং এই জোড়া হত্যাকাণ্ডের পুরো ঘটনাপরম্পরা কী ছিল, সেটাও স্পষ্ট হল না। বিবিসি।

Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *