নৌকায় ভোট দিয়ে মানুষের সেবা করার সুযোগ দিন: প্রধানমন্ত্রী


Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

নিউজ ডেস্ক
সত্যবাণী

যশোরঃ  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নৌকা প্রতীকে ভোট চেয়েছেন। তিনি বলেন, ‘অতীতের মতো আগামী নির্বাচনেও নৌকার পাশে থাকুন।আমরা দেশের মানুষের ভাগ্য উন্নয়নে কাজ করছি, আগামীতেও করব।’

আজ রোববার যশোর ঈদগাহ ময়দানে জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। যশোরের ভবদহ সমস্যার ব্যাপারে শেখ হাসিনা বলেন, ‘এ অঞ্চলের জলাবদ্ধতা দূর করার জন্য কপোতাক্ষসহ ভৈরব নদের জলাবদ্ধতা যদি দূর করতে পারি, তাহলে ভবদহের পানিনিষ্কাশনও সহজ হয়ে যাবে। ভবদহ সংস্কারেরও আমরা ব্যবস্থা নিয়েছি।’জনসভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহীদুল ইসলাম মিলন। সভা পরিচালনা করেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহীন চাকলাদার। জনসভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যশোরের ২৮টি উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন ও ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের ঘোষণা দেন।বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও তাঁর দুই ছেলের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ তুলে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘খালেদা জিয়ার এক ছেলে দেশের টাকা পাচার করে আমেরিকায় ধরা পড়েছে। আরেক ছেলে সিঙ্গাপুরে ধরা পড়েছে। ওই টাকা আমরা ফিরিয়ে এনে দেশের কাজে লাগিয়েছি। তাদের মা-ও কম যান না। তিনি (খালেদা জিয়া) এতিমদের টাকা মেরে খান।’

বিএনপি-জামায়াতের শাসনামলের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিএনপি-জামায়াত জোট ভূতের মতো দেশ চালিয়েছে। কথায় আছে ভূত পেছন দিকে হাঁটে। বিএনপিও ক্ষমতায় থাকলে ভূতের মতো পেছন দিকে হাঁটে। তারা ক্ষমতায় এলে হত্যা, সন্ত্রাস, লুটপাট ও সন্ত্রাস বেড়ে যায়। অন্যদিকে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় গেলে দেশের উন্নয়ন হয়। মানুষ শান্তিতে থাকে।পদ্মা সেতু নির্মাণের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমি শেখ হাসিনা, জাতির পিতার কন্যা। আমি দুর্নীতি করতে আসিনি। বিশ্বব্যাংক পদ্মা সেতু নির্মাণে আমাদের দুর্নীতি প্রমাণ করতে পারেনি। আমরা নিজেদের টাকায় পদ্মা সেতু নির্মাণ করছি। শুধু সেতু নয়; পদ্মা সেতুর সঙ্গে রেললাইনও করা হচ্ছে। ওই রেললাইন ঢাকা থেকে যশোর-খুলনা হয়ে মোংলায় যাবে।এর আগে বেলা ১১টা ১০ মিনিটে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যশোর বীরশ্রেষ্ঠ মতিউর রহমান বিমানঘাঁটিতে হেলিকপ্টারে করে নামেন। সেখানে বিমানবাহিনীর রাষ্ট্রপতি কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে অভিবাদন গ্রহণ করেন। সেখানে বিমানবাহিনীর ৭৯ জন ফ্লাইট ক্যাডেটকে তিনি কমিশন প্রদান করেন। এর মধ্যে ১৩ জন নারী ক্যাডেট রয়েছেন।

Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *