খালেদা জিয়ার যুক্তিতর্ক উপস্থাপন ২৩ জানুয়ারি পর্যন্ত মুলতবী


Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

নিউজ ডেস্ক
সত্যবাণী

আইন ও  আদালতঃ জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার উপস্থিতিতে আজ ত্রয়োদশ দিনের মতো অন্য আসামিদের যুক্তিতর্ক শেষ হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার দিকে রাজধানীর বকশীবাজার আলিয়া মাদ্রাসায় স্থাপিত বিশেষ আদালতে পৌঁছান খালেদা জিয়া। যদিও তার আগেই বিচারক ড. আখতারুজ্জামান মামলার শুনানি শুরু করেন। দুপুরের পর আদালত আগামী ২৩ জানুয়ারি পর্যন্ত মুলতবি করে। পরবর্তী সময়ে শুনানি হবে ২৩, ২৪ ও ২৫ জানুয়ারি।

আজ এ মামলার আসামি কাজী সলিমুল হক ও শরাফ উদ্দিনের পক্ষে যুক্তিতর্ক তুলে ধরছেন তাঁদের আইনজীবী আহসান উল্লাহ। গতকাল বুধবার থেকে এ দুই আসামির যুক্তিতর্ক শুরু হয়।গতকাল এ মামলার শুনানি চলাকালে খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা মামলাটি আজকের জন্য মুলতবি রাখার আবেদন জানিয়েছিলেন। সাবেক প্রধানমন্ত্রীর আইনজীবী আদালতকে জানিয়েছিলেন, আজ খালেদা জিয়ার মায়ের মৃত্যুবার্ষিকী। এ জন্য মামলাটি যেন একদিনের জন্য মুলতবি রাখা হয়।আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আদালত খালেদা জিয়াকে আজকের হাজিরা থেকে রেহাই দেন; তবে মামলার কাজ চলবে বলে জানান। এরপর খালেদা জিয়া তাঁর আইনজীবীকে জানিয়েছিলেন তিনি আজও আদালতে যাবেন। দুপুরের আগেই তিনি আদালতে পৌঁছান।

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলার এজাহার থেকে জানা যায়, ২০০৫ সালে কাকরাইলে সুরাইয়া খানমের কাছ থেকে ‘শহীদ জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট’-এর নামে ৪২ কাঠা জমি কেনা হয়। কিন্তু জমির দামের চেয়ে অতিরিক্ত এক কোটি ২৪ লাখ ৯৩ হাজার টাকা জমির মালিককে দেওয়া হয়েছে বলে কাগজপত্রে দেখানো হয়, যার কোনো বৈধ উৎস ট্রাস্ট দেখাতে পারেনি। জমির মালিককে দেওয়া ওই অর্থ ছাড়াও ট্রাস্টের নামে মোট তিন কোটি ১৫ লাখ ৪৩ হাজার টাকা অবৈধ লেনদেনের তথ্য পাওয়া গেছে।২০১০ সালের ৮ আগস্ট জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্টের নামে অবৈধভাবে অর্থ লেনদেনের অভিযোগ এনে খালেদা জিয়াসহ চারজনের নামে তেজগাঁও থানায় দুর্নীতির অভিযোগে এ মামলা করেছিলেন দুর্নীতি দমন কমিশনের সহকারী পরিচালক হারুন-অর-রশিদ।এ মামলার অপর আসামিরা হলেন—খালেদা জিয়ার সাবেক রাজনৈতিক সচিব হারিছ চৌধুরী, হারিছের তখনকার সহকারী একান্ত সচিব ও বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌচলাচল কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) নৌ নিরাপত্তা ও ট্রাফিক বিভাগের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক জিয়াউল ইসলাম মুন্না এবং ঢাকার সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকার একান্ত সচিব মনিরুল ইসলাম খান।

Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *