প্রয়াত হলেন বাংলা চলচ্চিত্রের স্বর্ণযুগের নায়িকা সুপ্রিয়া দেবী


Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

রক্তিম দাশ
কন্ট্রিবিউটিং এডিটর, সত্যবাণী

কলকাতা থেকে: প্রয়াত হলেন বাংলা চলচিত্রের স্বর্ণযুগের নায়িকা সুপ্রিয়া দেবী। দীর্ঘদিন ধরে নানা রোগে ভুগছিলেন। শুক্রবার সকালে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে তার জীবনাবসান হয়।
১৯৩৩ সালে তৎকালীন বর্মায় জন্ম হয় সুপ্রিয়া চৌধুরীর। পরবর্তীতে যিনি পরিচিতি হন সুপ্রিয়া দেবী এবং বেণুদি হিসাবে। সুপ্রিয়া দেবীর কন্যা সোমা চট্টোপাধ্যায় জানান এদিন সকাল ছটা নাগাদ হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে বালিগঞ্জ সার্কুলার রোডের বাড়িতে অভিনেত্রীর মৃত্যু হয়।ভোরের দিকে তিনি বাথরুমে গিয়েছিলেন। তারপরই ঘটে বিপত্তি। ডাক্তারারা জানান স্ট্রোক। অনেক দিন ধরে তিনি কোমর, কিডনি-সহ একাধিক সমস্যায় ভুগছিলেন। সকালের অ্যাটাক এমন পর্যায়ে ছিল যে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার সুযোগটুকু মেলেনি।প্রথমে এই ঘটনা বাড়ির লোকজনও বুঝতে পারেননি। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৫।

EB6C7F16-F74D-4A7D-BC0C-E114D33FBA0Aমুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় শোক প্রকাশ করেছেন সুপ্রিয়া দেবীর প্রয়াণে। তিনি বলেছেন, ‘‘উত্তম অধ্যায়ের অবসান। চলচ্চিত্র জগতের অপূরণীয় ক্ষতি।’’
সাত বছর বয়সে বাবার হাত ধরে তাঁর থিয়েটারে আত্মপ্রকাশ। প্রহ্লাদ দাসের কাছে নাচ শিখেছিলেন।সুপ্রিয়া দেবীর প্রয়াণে বাংলা চলচিত্র জগতে বড় অধ্যায়ের যবনিকা হল। এরপর একের পর এক কালজয়ী ছবি তিনি উপহার দেন। বাংলা ছবির দর্শকদের মনে জায়গা জুড়ে ছিলেন উত্তম-সুপ্রিয়া জুটি। ১৯৫২ সালে ‘বসু পরিবার’ ছবিতে উত্তম কুমারের সঙ্গে অভিনয় করে পর্দায় তাঁর আত্মপ্রকাশ। এরপর তাঁর ‘সোনার হরিণ’, ‘বাঘবন্দি খেলা’, ‘চিরদিনের’ ‘চৌরঙ্গি’ ‘বনপলাশির পদাবলী’, ‘সন্ন্যাসী রাজা’ , ‘দেবদাস’, ‘দুই পুরুষ’ বাংলা ছবির যেন একের পর এক মাইলস্টোন। ‘মেঘে ঢাকা তারা’ সিনেমায় তাঁর অনবদ্য অভিনয় ভুলতে পারেন না সিনেমাপ্রেমী মানুষ। ২০০৬ সাল পর্যন্ত ৪৫টি ছবিতে তিনি অভিনয় করেন । পাশাপাশি কিছু ধারাবাহিকে দাপটের সঙ্গে তাঁর অভিনয় জায়গা করে নিয়েছে বাঙালি দর্শকদের মনে। পদ্মশ্রী থেকে বঙ্গবিভূষণ। একাধিক সম্মানে তিনি ভূষিত হয়েছেন।

Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *