বার্মিংহাম সহকারী হাই কমিশনের উদ্যোগে অমর একুশে উদযাপন


Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

প্রেস রিলিজ ডেস্ক
সত্যবাণী

বার্মিংহাম থেকে: যথাযোগ্য মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে বাংলাদশ সহকারী হাই কমশিন, বার্মিংহামের উদ্যোগে বুধবার ২১শে ফব্রেয়ারী মহান শহীদ ও আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন করা হয়ছে।একুশের প্রথম প্রহরে সহকারী হাই কমশিনার জনাব মোহাম্মদ জুলকার নায়েন সহকারী হাই কমিশনের সদস্যদের নিয়ে বার্মিংহামের স্মলহীথ পার্কের স্থানীয় শহীদ মিনারে ভাষা শহীদদের সম্মানে পুস্পস্তবক অর্পণ করেন।
পতাকা উত্তোলন ও অর্ধনমিতকরনের মাধ্যমে দিবসের সূচনা করেন সহকারী হাই কমিশনার।
জাতীয় সংগীত এর পর পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত ও গীতা পাঠ-এর মাধ্যমে শুরু হয় অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় র্পব। এতে প্রথমে ১৯৫২-এর ভাষা শহীদ এবং স্বাধীনতার স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শখে মুজিবুর রহমান ও শহীদ মুক্তিযাদ্ধাদের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত এবং বাংলাদেশের সামগ্রিক উন্নয়ন কামনা করে বিশেষ মোনাজাত পরিচালনা করেন মিশনের হিসাব কর্মকর্তা জনাব সিকদার মিজানুর রহমান। অনুষ্ঠানে গীতা থেকে পাঠ করেন কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব তারকা রঞ্জন চন্দ্র। ভাষা শহীদ এবং স্বাধীনতার স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু
শেখ মুজিবুর রহমান ও শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদনের উদ্দেশ্যে দাড়িয়ে এক মনিটি নীরবতা পালন করা হয়। দিবসটি উপলক্ষে মহামান্য রাষ্ট্রপতি ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রদত্ত বাণী অনুষ্ঠানে পাঠ করেন সহকারী হাই কমশিনার মোহাম্মদ জুলকার নায়েন, মাননীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বাণী পাঠ করেন দ্বিতীয় সচিব মোহাম্মদ রেজাউল করিম এবং মাননীয় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর বাণী পাঠ করেন প্রশাসনিক র্কমর্কতা এস, এম, গোলাম সরওয়ার।
প্রবাসী বাংলাদেশী বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা, ব্যবসায়ীসহ ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিক এবং বিভিন্ন পেশার স্বনামধন্য ব্যক্তিবর্গ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। মিশনের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মোহাম্মদ মনিরুল ইসলামের পরিচালনায় উপস্থিত সম্মানিত সুধীমন্ডলীর মধ্য থেকে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন, মিশির আলী, শেখ মোহাম্মদ গফুর, মোহাম্মদ বেলাল বদরুল, তোফাজ্জেল চৌধূরী, ফয়জুর রহমান চৌধূরী এমবিই, মোহাম্মদ খলিলুর রহমান, সাব্বির হোসেন, শাহ আবেদ আলী, হিবজুর রহমান খান, মিসেস খন্দকার শিমুল বিল্লাহ, মোহাম্মদ আব্দুর রশিদ, মোহাম্মদ আব্দুল মুহিত, তছির উদ্দিন, কাজী মাসুদ ও জহুরুল ইসলাম প্রমুখ। বক্তাগণ মহান শহীদ দিবস এবং আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের গুরুত্ব ও তাৎর্পয বিশদভাবে ব্যাখ্যা করেন এবং ১৯৫২ সালের সকল ভাষা শহীদ, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং সকল শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের আত্মত্যাগের কথা শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন।

সহকারী হাই কমিশনার জনাব মোহাম্মদ জুলকার নায়েন ভাষা আন্দোলনের পটভূমি উল্লেখপূর্বক দিবসটির তাৎপর্য বিশদভাবে তুলে ধরে আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে বাংলা ভাষাকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা হিসেবে ইউনেস্কো কর্তৃক স্বীকৃতি লাভে বর্তমান সরকারের অর্জিত সাফল্য এবং বাংলাদেশকে মর্যাদাশীল দেশ হিসেবে তুলে ধরার ভবিষ্যত পরিকল্পনা ব্যাখ্যা করেন।
তিনি ভাষা দিবসের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে সহকারী হাই কমিশনের ওয়েব সাইট-কে ইংরেজী ভাষার পাশাপাশি বাংলা ভাষায় প্রকাশনার কথা উল্লেখ করেন।
স্বপ্রনোদিত হয়ে অনুষ্ঠানে বিপুল সংখ্যক নারী-পুরুষের অংশগ্রহণের জন্য সহকারী হাই কমিশনার সকলের প্রতি ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।
মধ্যাহ্ন ভোজ আপ্যায়নের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের পরিসমাপ্তি ঘটে।

Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *