এরা কি শুধুই কোপানোর জন্য কোপাচ্ছে


Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

 6F72FB1D-AFF5-4588-9238-61406EEF0887 গালিব মাহদী

নিন্দা জানানোর ভাষা নেই। বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন শিক্ষককে প্রকাশ্যে হত্যার চেষ্টা, অবস্থা বিবেচনায় স্পষ্ট প্রতিয়মান হয় হত্যাচেষ্টাকারি আত্মঘাতি। কবি শামসুর রহমান, হুমায়ুন আজাদ থেকে শুরু করে সর্বশেষ অধ্যাপক জাফর ইকবাল একই গোষ্টির হিংস্র থাবার শিকার। ঘাতক নিরবে,সরবে অবস্থান করে আশে পাশে, এদের চিহ্নিত করা কি খুবই কঠিন ? মনে হয়না। তবে ধরা যাচ্ছেনা কেন ? এরা কি শুধুই কোপানোর জন্য কোপাচ্ছে ? নিশ্চই না এদের একটা মতলব আছে সেটা বিবেচনায় নিতে হবে। এ ঘটনায় হায়নাটি ধরা পড়েছে হাতে নাতে। তার স্বভাব চরিত্র,চলন,বলন,মনন, ধর্মিয়ভাবে সে কো মতবাদ অনুসরণ করে এসব বিষয়ে খোঁজ খবর নিলেই স্পষ্ট ধারনা পাওয়া যাবে এটা নিশ্চিত। সে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র নয়, বহিরাগত। তার নাম, কার ছেলে,কোথায় থাকে, কোন পদ্ধতিতে নামাজ পড়ে সবই মিডিয়ায় আসছে।

প্রিয় শিক্ষক জাফর ইকবালের সাথে গালিব মাহদী
প্রিয় শিক্ষক জাফর ইকবালের সাথে গালিব মাহদী

পরিস্কারভাবে বুঝা যায় ছেলেটা ধর্মিয় মৌলবাদী চরমপন্থি। ধর্মের আবরণে বাজারজাত করা ধর্মনাশা, সমাজবিধ্বংসী মতাদর্শই মৌলবাদ। এর মূল উদ্দেশ্য হলো ধর্মে অজ্ঞ, কিন্তু ধর্মপ্রাণ এমন এমন মানুষকে ধর্মের একটি সংক্ষেপিত রূপ দিয়ে ধর্মবিকৃতি প্রচলিত করা- যা তাকে তার অজ্ঞ্যাতেই ধর্মচ্যুত করে, সন্ত্রাসি করে,হিংস্র করে তোলে। এ কাজটি চলছে দীর্ঘদিন ধরে।
এরা ইসলামের প্রধান ধারা আহলে সুন্নাত আল জামাত তথা মাজহাব যা ইসনাদভিত্তিক প্রকৃত ধর্মের বিরুদ্ধে, জ্ঞানভিত্তিক মানবিক সমাজেরও বিরুদ্ধে। তাই জ্ঞ্যানিদের উপর আঘাত। এরা শুধু আধুনিক শিক্ষায় শিক্ষিত মুক্তচিন্তার মানুষকে নয়, দুনিয়ার মাজহাবপন্থি মুসলমানসমাজকে ‘ধর্মচ্যুত’ ‘মুশরিক’ মনে করে তার বিরুদ্ধে জেহাদের জন্য মানসিকভাবে প্রস্তুত করে মাঠে নামায় তাদের শিষ্যদের। এ ঘাতক ছেলেটি মৌলবাদীদের তৈরি করা এক আত্মঘাতি জেহাদী। সরকারি গোয়েন্দা সংস্থা আরও বেশি অবগত, তারপরও এরা নতুন মসজীদ ও ইসলামিক রিসার্চ ইন্সটিটিউট বানাচ্ছে বিভিন্ন জায়গায়।

গালিব মাহদী: শাবিপ্রবি’র ছাত্র

Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *