টেমস নদীর তীরে জালালী কৈতর উড়ে: লন্ডনে সিলেট উৎসব (ভিডিও)


Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট
সত্যবাণী

লন্ডন:  লন্ডনে অনুষ্ঠিত হলো সিলেট উৎসব ২০১৮।

টেমস নদীর তীরে
জালালী কৈতর উড়ে,
খবর শুনে সব সিলেটি
বাংলা টাউনে ভিড়ে॥

শিকড়ের টানে প্রাণের আকুলতায় রবিবার ৪ঠা মার্চ সিলেটিরা জড়ো হয়েছিলেন লন্ডনে বাঙালীর নীড়খ্যাত বাংলাটাউনের ব্রাডি সেন্টারে। সিলেট উৎসব উপলক্ষে এদিন এখানে বসেছিলো স্মৃতিকাতর প্রবাসী সিলেটিদের মিলন মেলা। বেলা আড়াইটা থেকে শুরু হওয়া এই মিলন উৎসবে লন্ডনসহ পার্শ্ববর্তী শহরগুলো থেকে এসে জড়ো হয়েছিলেন বিপুল সংখ্যক গৃহাকুল মানুষ, যারা শয়নে স্বপনে প্রতিনিয়তই মনের ভেতর লালন করেন প্রিয় সিলেটকে। এদের মধ্যে ছিলেন ব্রিটিশ পার্লামেন্টে প্রথম বাংলাদেশী সিলেটি বংশোদ্ভূত এমপি, স্থানীয় বারার সিলেটি বংশোদ্ভূত স্পীকার, কাউন্সিলার, মূলধারার রাজনীতিক, বাংলা গণমাধ্যমের সিনিয়র সাংবাদিক, সাহিত্যিক, সংস্কৃতিকর্মীসহ অনেকেই। এ যেন এক প্রাণের মেলা। স্মৃতিকাতর হয়ে ফিরে যাওয়া ফেলে আসা শৈশব-কৈশোরে।

69D9E739-CA16-446C-909F-30E1FBFBC784‘কিতা ভাইসাব কিলান আছইন বাড়ীর হক্কল ভালানি’-পরস্পরকে এমন কুশলাদি জিজ্ঞাসা, শৈশব-কৈশোরের স্মৃতিচারণ, সিলেটি পুঁথি, নাচ, গান, ধামাইলনৃত্য ইত্যাদি উপভোগের মাধ্যমে জড়ো হওয়া মানুষগুলো কিছুক্ষনের জন্য হলেও যেন ফিরে গিয়েছিলেন তাদের জন্মমাটিতে যেখানে পোঁতা রয়েছে তাদের শিকড়। স্থান সংকুলান না হওয়ায় অনেককেই দীর্ঘক্ষন হলের বাইরে লাইনে দাড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে এসময়।
6E596824-411A-4308-9B18-457772DD7D7Cস্থানীয় সময় বেলা আড়াইটায় উৎসবের উদ্বোধন করেন ব্রিটেনে বাংলাদেশের হাই কমিশনার নাজমুল কাওনাইন ও বাঙালী অধ্যুষিত টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলের স্পীকার সাবিনা আক্তার। তাঁর সাথে ছিলেন সিলেটের সাবেক এমপি, ব্রিটেনের এক সময়ের শীর্ষ কমিউনিটি নেতা শফিকুর রহমান চৌধুরী, লন্ডন বাংলা প্রেস ক্লাবের সভাপতি সৈয়দ নাহাস পাশা, জনমত সম্পাদক নবাব উদ্দিন, সত্যবাণীর প্রধান সম্পাদক সৈয়দ আনাস পাশাসহ অন্যান্যরা। অনুষ্ঠান শুরুর পরপরই উৎসবে এসে যোগ দেন ব্রিটিশ পার্লামেন্টের প্রথম বাংলাদেশী ও সিলেটি বংশোদ্ভূত এমপি রোশনারা আলী, টাওয়ার হ্যামলেটসের নির্বাহী মেয়র জন বিগসসহ বর্তমান ও সাবেক কাউন্সিলাররা।

6E7086BD-5202-4BDE-9201-BDAD07120A77অনুষ্ঠানের শুরুতে কমিটির চেয়ারম্যান আনসার আহমেদ উল্লা, সেক্রেটারী আহাদ চৌধুরী বাবুর স্বাগত বক্তব্যের পর বক্তব্য  রাখেন রোশনারা আলী এমপি, টাওয়ার হ্যামলেটসের নির্বাহী মেয়র জন বিগস, সাবেক এমপি শফিকুর রহমান চৌধুরী, টাওয়ার হ্যামলেটসের স্পীকার সাবিনা আক্তার, লন্ডন বাংলা প্রেস ক্লাব সভাপতি সৈয়দ নাহাস পাশা, সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ জোবায়ের, জনমত সম্পাদক নবাব উদ্দিন, চ্যানেল এস প্রতিষ্ঠাতা মাহি ফেরদৌস জলিল, চ্যানেল আইয়ের ডা: আনোয়ারা আলী, এটিএন বাংলার মমতাজ বেগম ও সত্যবাণীর প্রধান সম্পাদক সৈয়দ আনাস পাশা। পুরো অনুষ্ঠানের প্রাণবন্ত উপস্থাপনায় ছিলেন মুনিরা পারভিন ও সৈয়দা সায়মা আহমেদ। সার্বিক তত্বাবধানে ছিলেন উৎসব কমিটির চেয়ারম্যান আনসার আহমেদ উল্লাহ, কো-চেয়ারম্যান জামাল খান, সেক্রেটারী আহাদ চৌধুরী বাবু, ট্রেজারার এএসএম মাসুম, প্রেস এন্ড মিডিয়া সেক্রেটারী জুয়েল রাজ, সদস্য শাহ মোস্তাফিজুর রহমান বেলাল, মোসলেহ উদ্দিন আহমদ, কামাল মেহদী, আব্দুল বাছির ও বিশ্বজিত রায় অপু।

0FFFEE4D-9176-41BF-87A9-47532108CDBEএমপি রোশনারা আলী তাঁর বক্তৃতায় সিলেটি হিসেবে নিজেকে গৌরবান্বিত মনে করেন, এমন মন্তব্য করে বলেন, ৭ বছর বয়সে আমি এদেশে এসেছিলাম। লেখাপড়া শেষে রাজনীতি এরপর ব্রিটিশ পার্লামেন্টের এমপি হয়েছি, কিন্তু নিজের সিলেটি পরিচয় বিসর্জন দেইনি। তিনি বলেন, জাহাজের খালাসী হয়ে আমাদের পূর্ব পুরুষরা পাড়ি দিয়েছিলেন যে ব্রিটেনে, সেই ব্রিটেন এখন আমাদেরও দেশ।

895CCB22-475A-4DFF-BCCD-B9C4A2A01437ব্রিটেনে সিলেটি তথা বাংলাদেশীদের আজকের সমৃদ্ধ অবস্থানের জন্য পূর্ব প্রজন্মের দীর্ঘ সংগ্রাম ও ত্যাগ তিতীক্ষার কথা স্মরণ করে সিলেটি তথা বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত এই ব্রিটিশ এমপি বলেন, আমাদের পূর্ব প্রজন্মের দীর্ঘ সংগ্রামের ইতিহাস আজ মাল্টিকালচারাল ব্রিটিশ সোসাইটির ইতিহাসের অংশ। রোশনারা বলেন, ব্রিটেনের মূলধারার রাজনৈতিক, সামাজিক ও রাষ্ট্রিয় বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে আমাদের প্রজন্মের অবস্থান পূর্ব প্রজন্মের দীর্ঘ ত্যাগ তীতিক্ষারই ফসল। এই সংগ্রামী পূর্ব প্রজন্মকে অবশ্যই আমাদের স্মরণ করতে হবে। সিলেট উৎসব সেই সুযোগই করে দিয়েছে বলে মন্তব্য করেন তিনি। বলেন, এমন সুযোগ করে দেয়ার জন্য আমি ধন্যবাদ জানাই সিলেট উৎসব কমিটিকে।

F781F583-FD8E-423B-8D9C-7F4D98609B70হাই কমিশনার নাজমুল কাওনাইন তাঁর বক্তৃতায় বলেন, ব্রিটেনে বাঙালী কমিউনিটির আজকের সুদৃঢ় অবস্থানের পেছনে পূর্ব প্রজন্মের সিলেটিদের গুরুত্বপূর্ণ অবদান রয়েছে। মহান মুক্তিযুদ্ধসহ দেশের বিভিন্ন দুর্যোগ দুঃসময়ে ব্রিটেন প্রবাসী সিলেটিদের ভূমিকা রাষ্ট্রও স্বীকার করে এমনটি জানিয়ে হাই কমিশনার বলেন, দেশের প্রতিনিধি হিসেবে এটি জানাতেই আমি আজ সিলেট উৎসবে এসেছি।

E91FA8DA-269F-4A22-A87F-E52B48208A52সাবেক এমপি ও এক সময়ের শীর্ষ কমিউনিটি নেতা শফিকুর রহমান চৌধুরী তাঁর বক্তৃতায় বলেন, ব্রিটেনে বাঙালী কমিউনিটির বসতি সিলেটিদের হাত ধরে। জাহাজী হিসেবে আমাদের বাবা-চাচারা এখানে এসেছিলেন বলেই ব্রিটিশ সমাজের মূলধারার অংশ আজ আমরা।

99ECA5F5-7A32-4E35-A05E-C18E50E6231Dটাওয়ার হ্যামলেটস বারার নির্বাহী মেয়র জন বিগস উৎসবে আগত সিলেটিদের স্বাগত জানিয়ে বলেন, সিলেটিরা একটি পরিশ্রমী জনগোষ্ঠি। পূর্ব প্রজন্ম ব্রিটেনের মাটিতে তাদের বসতির যে ভিত্তি গড়ে দিয়েছিলেন, দীর্ঘ সংগ্রামের মধ্য দিয়ে তারা সেই ভিত্তিকে মজবুত থেকে মজবুততর করেছেন। টাওয়ার হ্যামলেটসের উন্নয়নে সিলেটিদের অবদান আমাদের স্থানীয় ইতিহাসের অংশ।

7D4A76B8-1E41-43BE-89DB-345670774067স্পীকার সাবিনা আক্তার সিলেট উৎসবের আয়োজন করায় উদ্যাক্তাদের ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, এতে ব্রিটেনে বেড়ে ওঠা আমার প্রজন্মের অনেকেই শিকড় সন্ধানে উৎসাহি হবে।

46D4310F-0B3E-4666-9CCB-91683EB080ABবক্তৃতা পর্বের পরেই শুরু হয় সাংস্কৃতিক পর্ব। এতে ছিলো সিলেটি পুঁথিপাঠ, কবিতা, ফ্যাশন শো, বাউল সঙ্গীত, নৃত্য ও সিলেটি ধামাইল ইত্যাদি। ব্রিটেনে বসবাসরত ও জন্ম নেয়া শিল্পীরা এতে অংশ নেন। প্রখ্যাত শিল্পী গৌরি চৌধুরী, আলাউর রহমান, বাউল শহীদ, হাসি রানি এবং গৌরী চৌধুরীর ‘সুরালয়’ সঙ্গীতালয়ের গানের শিক্ষার্থী ব্রিটেনে জন্ম নেয়া শিশু শিল্পী রাফা ও শুভাঙ্গী দামসহ অন্যরা এতে অংশ নেন।

রাত সাড়ে ৯টায় উৎসবের সমাপ্তী ঘোষণা করেন উৎসব কমিটির কো-চেয়ার জামাল খান।

 

Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *