“তারেক বাংলাদেশের নাগরিকত্ব ছেড়ে দিয়েছেন”


Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

নিউজ ডেস্ক
সত্যবাণী

লন্ডন: বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান বাংলাদেশের নাগরিক নন, ব্রিটেনের লাল পাসপোর্টের লোভে তারেক বাংলাদেশের সবুজ পাসপোর্ট ত্যাগ করেছেন বলে মন্তব্য করেছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম। 

শনিবার সেন্ট্রাল লন্ডনে প্রধান মন্ত্রীর শেখ হাসিনার সম্মানে যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগ আয়োজিত সংবর্ধনা সভায় বক্তৃতাকালে তিনি এ মন্তব্য করেন। শাহরিয়ার আলম বলেন, লাল পাসপোর্টের লোভে বাংলাদেশী পাসপোর্ট ত্যাগ করেছেন তারেক, তিনিতো বাংলাদেশের নাগরিকই নন। এমন একজন মানুষকে বিএনপি চেয়ারম্যান করায় তীব্র সমালোচনা করে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী প্রশ্ন তুলেন, বাংলাদেশের পাসপোর্ট ফেরত দেয়া এমন একজন দন্ডিত অপরাধীকে বিএনপি চেয়ারম্যান বানায় কিভাবে। তিনি বলেন, বিএনপি আসলে এখন অস্থিত্ব সংকটে ভুগছে, চেয়ারম্যান করার মত যোগ্য একজন নেতাও নেই তাদের। রাজনৈতিক ভাবে দেউলিয়া এমন একটি দলকে বাংলাদেশের জনগন আর হিসেবেই নেবেনা বলে মন্তব্য করেন শাহরিয়ার আলম। তিনি লন্ডনে বসে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড পরিচালনায় নেতৃত্ব দেয়ায় তারেকের তীব্র সমালোচনা করে বলেন, আদালতের দেয়া দন্ড ভোগের জন্য তাকে বাংলাদেশে ফেরত যেতে হবেই। 

বক্তব্য রাখছেন প্রধানমন্ত্রী। মঞ্চে অন্যান্যের সাথে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম।
বক্তব্য রাখছেন প্রধানমন্ত্রী। মঞ্চে অন্যান্যের সাথে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম। ছবি: সত্যবাণী

যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগ সভাপতি সুলতান শরীফের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ ফারুকের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সমাবেশে প্রধানমন্ত্রী ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী ছাড়াও পররাষ্ট্র মন্ত্রী এএইচএম মাহমুদ আলী, শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি, প্রবীন সাংবাদিক আবদুল গাফ্ফার চৌধুরী, যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সহসভাপতি জালাল উদ্দিন, হরমুজ আলী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মারুফ চৌধুরী, রিয়াজ উদ্দিন ও আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরীসহ যুবলীগ, মহিলা লীগ, ছাত্রারলীগ ও দলের অন্যান্য অংগসংগঠনের নেতারা বক্তব্য রাখেন। জাতীয় সঙ্গীতের মাধ্যমে শুরু হওয়া অনুষ্ঠানে পবীত্র কোরান তেলাওয়াত, গীতা ও ত্রিপিটক পাঠ করা হয়।

প্রধানমন্ত্রী তাঁর দীর্ঘ বক্তৃতায় তাঁর সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ডের বর্ণনা দেয়ার পাশাপাশি জিয়া পরিবারের 

সদস্যদের সমালোচনায় ছিলেন মূখর। সম্প্রতি বাংলাদেশ হাই কমিশনে বিএনপি কর্মীদের হামলা ও বঙ্গবন্ধুর ছবি ভাঙ্গচুরের তীব্র সমালোচনা করে শেখ হাসিনা বলেন, আমার বিরুদ্ধে যা ইচ্ছে তাই করুক, জাতীর জনককে অবমাননা করার সাহস তারেক পায় কোথায়? এসময় তিনি কিছুটা উষ্মা প্রকাশ করে বলেন, হাই কমিশনে ঢুকার সুযোগ এরা পায় কিভাবে। দলীয় নেতাকর্মী ও প্রবাসীদের উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, দেশকে এক সময় সন্ত্রাসের স্বর্গরাজ্য বানিয়ে বিদেশে পালিয়ে এসে এখানেও সন্ত্রাস করছে জিয়ার ছেলে।

লন্ডন হাই কমিশনসহ বিভিন্ন স্থানে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড যাদের দিয়ে করাচ্ছে তাদের চিহ্নিত করে প্রতিহত করার চেষ্টাতো আপনারাও করতে পারেন। শেখ হাসিনা বলেন, খুন, অর্থ আত্মসাৎ ও দুর্নীতি করে লন্ডনে পালিয়ে এসেও সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে এখান থেকেও নেতৃত্ব দিচ্ছে, আর এই সন্ত্রাসী সাজাপ্রাপ্ত বিদেশে পালিয়ে থাকা ব্যক্তিকে বিএনপি তাদের চেয়ারম্যান বানায়, এই হলো বিএনপি।

উল্লেখ্য দীর্ঘ প্রায় ৯ বছর ধরে লন্ডনে রাজনৈতিক আশ্রয়ে আছেন  তারেক জিয়া। ১/১১-এর সময়ে রাজনীতি না করার মুচলেকা দিয়ে চিকিৎসার জন্য লন্ডনে এসেছিলেন। এরপর থেকে লন্ডনে বসেই বিএনপির রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন।

সর্বশেষ দলটির চেয়ারম্যান বেগম খালেদা জিয়া জেলে যাওয়ার পর থেকে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করছেন তারেক রহমান।

Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *