টাওয়ার হ্যামলেটস: এক দশক পর আবারও লেবারের নিরঙ্কুশ বিজয়


Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট
সত্যবাণী

লন্ডন: বাঙালী অধ্যুষিত টাওয়ার হ্যামলেটসে দীর্ঘ এক দশক পর আবারও নিরঙ্কুশ বিজয় নিয়ে কাউন্সিল নেতৃত্বে এসেছে লেবার পার্টি। ৩রা মে’র স্থানীয় নির্বাচনে নির্বাহী মেয়র ছাড়াও মোট ৪৫টি কাউন্সিলার আসনের ৪২টি ছিনিয়ে এনেছে বাঙালীর ভরসার রাজনৈতিক দল লেবার পার্টি। দলের প্রার্থী বর্তমান মেয়র জন বিগস ৪৪ হাজার ৮শ ৬৫ ভোট পেয়ে নির্বাহী মেয়র পদে আবারও নির্বাচিত হয়েছেন।তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্ধী পিপলস এলায়েন্সের প্রার্থী রাবিনা খান পেয়েছেন মোট ১৩ হাজার ১শ ১৩ ভোট। মোট ২৭ হাজার ৯শ ৮৫ ভোটের ব্যবধানে রাবিনা খানকে পরাজিত করা জন বিগসের প্রথম পছন্দের ভোট ছিলো মোট ৩৭ হাজার ৬শ ১৯। দ্বিতীয় পছন্দের ভোট গননায় আরও ৭ হাজার ২শ ৪৬ ভোট পাওয়ায় মোট ৪৪ হাজার ৮শ ৬৫ ভোট পেয়ে দ্বিতীয় বারের মত টাওয়ার হ্যামলেটসের নির্বাহী মেয়র নির্বাচিত হন জন বিগস। 

বিগসের নিকটতম প্রতিদ্বন্ধি পিপলস এলায়েন্সের প্রার্থী  রাবিনা খান প্রথম পছন্দে ভোট পান ১৩ হাজার ১শ ১৩। দ্বিতীয় পছন্দের ভোট গননায়  আরও ৩ হাজার ৮শ ৬৩ ভোট পাওয়ায় তার সর্বমোট ভোটের সংখ্যা দাড়ায় ১৬ হাজার ৮শ ৭৮ এ।

নির্বাচনে ১ লাখ ৯১ হাজার ২৪৬ ভোটারের মধ্যে ভোট প্রয়োগ করেন ৮০ হাজার ২৫২ ভোটার। এর মধ্যে পোস্টাল ভোট পড়েছে ১৯ হাজার ৮৩টি। কাষ্টিং ভোটের হার শতকরা ৪১.৯৬%।

মেয়র পদে প্রদত্ত ভোটের ৫১ শতাংশ এককভাবে ভোট কোনো প্রার্থী না পাওয়ায় প্রয়োজন হয় দ্বিতীয় পছন্দের ভোট গণনা। তবে প্রথম পছন্দের ভোটেই মূলত নির্বাচিত হয়ে যান মেয়র জন বিগস। 

মেয়র পদে তৃতীয় অবস্থানে রয়েছেন সাবেক মেয়র লুৎফুর রহমান সমর্থিত এসপায়ার পার্টির প্রার্থী অহিদ আহমদ। তিনি পেয়েছেন ১১ হাজার ১০৯ ভোট। আর কনজারভেটিভ পার্টির প্রার্থী ডাক্তার আনোয়ার আলীর প্রাপ্ত ভোট মোট ৬ হাজার ১৪৯ ভোট।

এদিকে, কাউন্সিলার পদে দীর্ঘ এক দশক পর আবারও নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা ছিনিয়ে এনেছে লেবার পার্টি। মোট ৪৫ আসনের ৪২টিতেই জয়লাভ করেন লেবার প্রার্থীরা। বাকী ২টি পেয়েছেন কনজারভেটিভ ও ১টি পিপলস এলায়েন্স। সাবেক মেয়র লুৎফর সমর্থিত এসপায়ার এবং লিবডেমের কোন প্রার্থীই বিজয়ী হতে পারেননি।

ছবি: কাউন্সিল ফটোগ্রাফার
ছবি: কাউন্সিল ফটোগ্রাফার

এক নজরে নির্বাচিত কাউন্সিলাররা হলেন:

বো ইস্ট : আমিনা আলী, রিচেল ব্ল্যাক এবং মার্ক ফ্রান্সিস (লেবার)।

বো ওয়েস্ট : আসমা বেগম এবং ভাল হোয়াটহেড (লেবার)।

ব্রোমলি নর্থ : জেনিথ রাহমান এবং ডান টমলিনসন (লেবার)।

ব্রোমলি সাউথ : ড্যানি হ্যাসল এবং হেলাল উদ্দিন (লেবার)।

ক্যানারি ওয়ার্ফ : কিস্টান ড্যানিয়েলা প্যারি এবং টোরি পার্টির এন্ড্রো জর্জ উড (লেবার)।

লাইম হাউস : জেইমস রোবার্ট ভ্যানাব্লেস কিং (লেবার)।

মাইলএন্ড : ডেভিড এডগার, আসমা ইসলাম এবং পুরু মিয়া (লেবার)।

পপলার : সুফিয়া আলম (লেবার)।

সেন্ট ডানস্টোনস : ডিপা দাশ এবং আয়াস মিয়া (লেবার)।

বেথনালগ্রীণ : মোহাম্মদ আহ্বাব হোসাইন, সিরাজুল ইসলাম এবং ইভা জোশেফাইন ম্যাকুলিন (লেবার)।

ব্ল্যাকওয়েল এন্ড কিউবিট টাউন : ইহতেশাম হক এবং মোহাম্মদ ইকবাল মোর্শেদ পাপ্পু (লেবার)।

আইল্যান্ড গার্ডেন : মুফিদাহ বাস্তিন (লেবার), এবং পিটার গোল্ড (কনজারভেটিভ)।

ল্যান্সবারি : কাহার চৌধুরী, মোহাম্মদ এইচএম হারুন এবং ব্যক্স হোয়াইট (লেবার)।

শেডওয়েল : রাবিনা খান (পিপলস এলায়েন্স), রুহুল আমিন (লেবার)।

স্পিটাল ফিল্ড এন্ড বাংলা টাউন : শাদ উদ্দিন চৌধুরী এবং লিমা ওমর কোরেশী (লেবার)।

সেন্ট ক্যাথরিন এবং ওয়াপিং :  ডেনিস জোন্স এবং আব্দাল উল্লাহ (লেবার)।

সেন্ট পিটার্স : ক্যাভিন জোশেফ ব্রাডি, তারিক আহমদ খান এবং গ্যাব্রিয়েলা সালভা ম্যাকালান (লেবার)।

স্ট্যাপনি গ্রীন : সাবিনা আক্তার এবং মতিন উজ জামান (লেবার)।

ওয়েভার্স : আব্দুল মুকিত এবং জন পিয়ার্স (লেবার)।

হোয়াইটচ্যাপল :ভিক্টোরিয়া নিগজি ওবেজা, ফারুক মাহফুজ আহমদ এবং কবি ও গীতিকার শাহ সোহেল আমিন (লেবার)।

জন বিগসের কৃতজ্ঞতা

এদিকে, নবনির্বাচিত মেয়র জন বিগস তাকে পুনরায় মেয়র হিসেবে নির্বাচিত করায় টাওয়ার হ্যামলেটসের নাগরিকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন। মেয়র অফিস থেকে প্রেরিত এক বিবৃতিতে বিগস বলেন, মেয়র নির্বাচিত করার মাধ্যমে আমার উপর পুনরায় আস্থা স্থাপন করায় আমি অভিভূত ও টাওয়ার হ্যামলেটসবাসীর প্রতি কৃতজ্ঞ।

তিনি বলেন, ‘২০১৫ সালে মেয়র হিসেবে আমার যাত্রা সুখকর ছিলোনা। একটা ধ্বংসস্তুপে দাড়িয়ে আমাকে কাজ শুরু করতে হয়েছিলো। কিন্তু মাত্র ৩ বছরে আমরা অনেক এগিয়েছি। আমার আগের নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি মোতাবেক নতুন ১হাজার কাউন্সিল ঘর ডেলিভারী দেয়া শুরু হয়েছে। ওয়ার্কপাথ প্রোগ্রাম বছরে ৫ হাজার লোকের ট্রেনিং এবং কর্মসংস্থানের জন্য কাজ শুরু করেছে।  আইনশৃঙ্খলা রক্ষা ও পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার জন্য অতিরিক্ত বরাদ্ধ দেয়া হয়েছে। এখন যত দ্রুত সম্ভব উচ্চাবিলাসী নতুন মেনুফেষ্টো বাস্তবায়নে কাজ শুরু করবেন, এমন মন্তব্য করে বিবৃতিতে বিগস বলেন, ‘আমি অতিতের ব্যর্থতাকে পিছনে ফেলে কাউন্সিলকে সামনে এগিয়ে নেয়ার চেষ্টা করেছি, চেষ্টা করেছি বাসিন্দাদের জন্য উন্নত সেবা প্রদানের’। তিনি বলেন, ‘প্রতিশ্রুতি রইলো, আগামী ৪ বছর এ লক্ষ্যে আমার সকল প্রচেষ্ঠা অব্যাহত থাকবে’।

 

Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *