বিভিন্ন অনুষ্ঠানের মধ্যে দিয়ে ২৫শে বৈশাখ পালিত হল কলকাতা ও শান্তিনিকেতনে


Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

রক্তিম দাশ
কন্ট্রিবিউটিং এডিটর,সত্যবাণী

কলকাতা থেকেঃ  বিভিন্ন অনুষ্ঠানের মধ্যে দিয়ে বুধবার কলকাতা ও শান্তিনিকেতনে পালিত হল রবীন্দ্রজন্মোৎসব।
এদিন ভোর ৫টায় শান্তিনিকেতনে   বৈতালিকের মধ্যে দিয়ে অনুষ্ঠানের সূচনা হয়।তার পরেই রবীন্দ্রভবনে রবিকণ্ঠ। সকাল ৭টায় উপাসনা মন্দিরে উপাসনা।সেখানে উপস্থিত ছিলেন ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য সবুজকলি সেন।পাঠভবনের ছাত্রছাত্রীদের পাশপাশি সংগীত ভবনের ছাত্রছাত্রীরা রবীন্দ্রসংগীত পরিবেশন করেন।জন্মদিন অনুষ্ঠান হয় মাধবীবিতানে,পরে শান্তিনিকেতনের পান্থশালাতে একটি অনুষ্ঠানের মধ্যে দিয়ে প্রকাশিত হয় “বিশ্বভারতী পত্রিকা”,উদ্বোধন করেন উপাচার্য।একই ভবে সন্ধ্যায় বিশ্বভারতীর  ভিত্তিস্থাপনের শতবর্ষে কর্মীসভার পক্ষ থেকে “সোনার তরী” নামের একটি ম্যাগাজিন প্রকাশিত হয়। প্রকাশ করেন বিশ্বভারতীর উপাচার্য।

এবার রবীন্দ্রনাথের ১৫৮তম জন্মদিবস। তার জন্মদিন কি পালিত হত শৈশব থেকেই? এই ভাবনা কে সমানে রেখে রবীন্দ্রনাথের জন্মদিন কি ভাবে পালিত হত তা নিয়ে ২৫শে বৈশাখ রবীন্দ্রভবনের উদ্যোগে “গগনে গগনে রবি” শীর্ষক প্রদশর্নী আয়োজন করা হয়েছে।  রবীন্দ্রনাথের বিভিন্ন জন্মদিনের ছবি তথ্য এই প্রদর্শনীতে তুলে ধরা হবে।

তথ্য থেকে জানা যায় ২৫ থেকে ২৬ বছরে পা দেওয়ার সময় সুহৃদ শ্রীশচন্দ্র মজুমদারের কাছে প্রথম আশীর্বাদ প্রার্থনা করে ছিলেন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। পরে সরলা দেবীর উদ্যোগে আড়ম্বরেরে সাথে রবীন্দ্রনাথের প্রথম জন্মদিন পালিত হয় ২৭ বছর বয়সে। সরলা দেবী ছিলেন স্বর্নকুমারী দেবীর কন্যা। এর পর থেকেই জন্মদিন পালিত হতে থাকে বিভিন্ন জায়গায়। নোবেল পুরস্কার পাওয়ার পর রবীন্দ্রনাথের জন্মদিন পালন রীতিতে পরিনত হয়। রবীন্দ্রনাথ ঊনপঞ্চাশ পেরিয়ে পঞ্চাশে পড়লেন ২৫শে বৈশাখ ১৩১৭ সালে (ইংরাজি-১৯১০)। ওই বছরের গীতাঞ্জলি ছাপতে দেন রবীন্দ্রনাথ। অই দিন তার জন্মদিন পালনের পরিকল্পনার কথা তাকে আগে থেকে জানানো হয়নি। পরে জন্মদিন পালন ছিল গুরুদেবের কাছে চমক। এই সব বিভিন্ন তথ্য, ছবি উঠে আসবে এই প্রদর্শনীতে।

এই বিষয়ে ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য সবুজকলি সেন বলেন, গুরুদেবের চিন্তাধারাকে সামনে রেখে বিশ্বভারতীকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ায় আমাদের লক্ষ্য।এদিকে এদিন সকালে বিশ্বভারতীতে কলকাতাস্থিত বাংলাদেশ হাইকমিশন থেকে চার সদস্যের একটি দল আসেন। তাদের মধ্যে অন্যতম মহঃইকবাল,জামাল হোসেন এবং মনসুর আহমেদ। তারা বাংলাদেশ ভবন ঘুরে দেখেন এবং কোথায় কি পরিবর্তন করতে হবে তার নির্দেশ দেন।অন্যদিকে কলকাতা ও রাজ্যজুড়ে এদিন গভীর শ্রদ্ধায় পালিত কবিগুরুর জন্মদিন।

Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *