গ্রেনেড হামলার রায় শিগগিরই : প্রধানমন্ত্রীর আশাবাদ


Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

নিউজ ডেস্ক
সত্যবাণী

ঢাকাঃ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন,২১ আগস্ট রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের জনসভায় গ্রেনেড হামলার মামলায় ‘তাড়াতাড়ি’ রায় ঘোষণা হবে।মঙ্গলবার বিকালে সরকারি বাসভবন গণভবনে ওই হামলায় নিহতদের স্বজন এবং আহতদের মধ্যে সহায়তার চেক বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন।শেখ হাসিনা অভিযোগ করেন, ২১ আগস্ট হামলার ঘটনার সঙ্গে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও তার ছেলে তারেক রহমান জড়িত ছিলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, এ রকম ঘটনা কখনও ঘটেনি যেখানে একটা হামলা হয়েছে অথচ হামলার শিকার নেতাকর্মীদের ওপর হামলা করেছে পুলিশ। তিনি বলেন, তারা হামলার পর আলামত নষ্ট করেছে। এরপর জজ মিয়া নাটক সাজিয়েছে।আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, তখন আমি বিরোধীদলীয় নেতা। আমাকে হত্যার জন্য যদি তখনকার সরকারের প্রধান ও তার ছেলে মিলে ষড়যন্ত্র করে তাহলে সে দেশ কীভাবে চলে আপনারা চিন্তা করতে পারেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, এই হত্যার বিচার চলছে। আশা করছি খুব তাড়াতাড়ি এটার বিচারের রায় হবে। এবং এ ঘটনার সঙ্গে যারা জড়িত, তারা উপযুক্ত শাস্তি পাক, সেটাই আমরা চাই, অর্থাৎ ন্যায়বিচার চাই।২১ আগস্টের সেই ভয়াবহ হামলার কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, এতগুলো মানুষের জীবন নিল এভাবে আক্রমণ করে। একটা দলকে সম্পূর্ণভাবে নিশ্চিহ্ন করে ফেলাই ছিল বিএনপির উদ্দেশ্য।

ওই হামলায় যারা আহত হয়েছিলেন, তাদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করেছিলেন জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী এ সহযোগিতা চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেন।শেখ হাসিনা আরও বলেন- যত দিন বেঁচে থাকব তত দিন এই হামলায় নিহতদের স্বজন এবং আহতদের সহায়তা করে যাব। কেবল এই হামলা নয়; বিএনপি-জামায়াত আমলে আওয়ামী লীগের যত নেতাকর্মী নির্যাতনের শিকার হয়েছে, সবার পাশে থাকব।উল্লেখ্য, ২০০৪ সালে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে জনসভায় ওই হামলার ঘটনা ঘটে। এতে দলের মহিলাবিষয়ক সম্পাদিকা প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের স্ত্রী আইভি রহমানসহ ২৪ জনের মৃত্যু হয়। হামলায় আহত হন কয়েকশ নেতাকর্মী। আর বর্তমান প্রধানমন্ত্রী অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে যান।

Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *