লন্ডন বাংলা প্রেসক্লাব কে ক্যানারিওয়ার্ফ-এর সংবর্ধনা


Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

নিউজ ডেস্ক
সত্যবাণী

লন্ডনঃ লন্ডন বাংলা প্রেসক্লাবের ২৫ বছর পূর্তির মুহুর্তে কমিউনিটিতে এর অবদানের জন্য সম্মান জানিয়েছে লন্ডনের শীর্ষ ফাইন্যানশিয়াল সিটি ক্যানারিওয়ার্ফ। ক্লাব নেতৃবৃন্দকে ক্রেস্ট প্রদান করে এই প্রতিষ্ঠানের পরিচালকরা বলেছেন, ক্যানারীওয়ার্ফ তার অবস্থান থেকে গত ত্রিশ বছরে স্থানীয় কমিউনিটির কল্যানে অনেক সামাজিক ভূমিকা পালন করেছে। গত ৮ বছরে শুধু কমিউনিটি প্রজেক্টে অনুদান দিয়েছেন ১৫ মিলিয়ন পাউন্ড। প্রেসক্লাব ও সমান ভাবে সক্রিয় ভূমিকা রাখছে।  এরকমই সবাই মিলে সামগ্রিক উন্নতিতে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করা উচিত।অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ক্যানারিওয়ার্ফের এমডি হাওয়ার ডোভার। চেষ্টা করে সাংবাদিক হয়ে উঠতে পারেননি, এই দু:খের কথা উল্লেখ করে তিনি সামগ্রিক ভাবে বাংলা মিডিয়ার প্রশংসা করেন। এসময় কোম্পানী ডিরেক্টর ম্যাট মেয়ার বলেন, লন্ডন বাংলা প্রেসক্লাবকে  সম্মান জানাতে পেরে আমরা আনন্দিত।ক্যানারিওয়ার্ফের এসোসিয়েট ডিরেক্টর জাকির খানের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে ক্লাব প্রেসিডেন্ট সৈয়দ নাহাস পাশা, সেক্রেটারী মুহাম্মদ জুবায়ের ও ট্রেজারার আ স মাসুমকে একটি করে বিশেষ সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। ক্রেস্ট দেয়া হয় লন্ডন বাংলা প্রেসক্লাবের নির্বাহী কমিটিকেও।
KH_00011হাওয়ার ডোভার বলেন, বৃটিশ অর্থনীতিতে ক্যানারিওয়ার্ফের অবদান বছরে ৪০  বিলিয়ন পাউন্ড।বেশ কিছু ইউরোপিয় হেড কোয়াটারসহ বিশ্বের ১৫০টি শীর্ষ পর্যায়ের কোম্পানীর প্রধান অফিস এখানেই। ১২০ হাজার এম্প্লয়ারের মধ্যে ১২ হাজার স্থানীয় টাওয়ার হ্যামলেটসের। ক্যানারি ওয়ার্ফের ত্রিশ তলায় কোম্পানী বোড রুমে লন্ডনবাংলা প্রেসক্লাবের সম্মানে আয়োজিত  এই অনুষ্ঠানে জাকির খান বলেন, স্থানীয় বারার ইয়ুথ, স্পোর্টস ও থার্ড সেক্টরে গত ৯ বছরে আমরা প্রায় ১৫মিলিয়ন পাউন্ডের অনুদান  দিয়েছি এবং সব সময় কমিউনিটির জন্য কাজ করার চেষ্টা করছি। প্রেসক্লাবের জন্য এই অনুষ্ঠান আয়োজন তারই অংশ। তিনি বলেন, প্রেসক্লাবও কমিউনিটির কল্যানে অনন্য ভূমিকা রাখছে।সম্মাননা ক্রেস্ট গ্রহন করে প্রেসক্লাব প্রেসিডেন্ট সৈয়দ নাহাস পাশা বলেন, কেনারিওয়ার্ফ  স্থানীয় তরুনদের কর্মসংস্থানে গুরুত্ব দিচ্ছে-এটা আশার কথা।আমি চাই বেশী বেশী বৃটিশ বাংলাদেশী তরুন এখানে  স্থান পাবে।প্রেসক্লাব সেক্রেটারী মুহাম্মদ  জুবায়ের বলেন, ক্যানারিওয়ার্ফের উচু ভবনে আসা-যাওয়াই বড় কথা নয়।বড়কথা হচ্ছে এই প্রতিষ্ঠান কমিউনিটিকে বিবেচনায় রাখছে। বৃহত্তর কমিউনিটি হিসেবে বৃটিশ বাংলাদেশীকে  গুরুত্ব দিচ্ছে। আর প্রেসক্লাবকে সম্মান জানানো মানে বাংলা মিডিয়াকে সম্মান জানানো। সবংর্ধনার পর অনুষ্ঠিত ডিনারে লন্ডন বাংলা প্রেসক্লাবের সাবেক কয়েক জন নেতা, সিনিয়র মিডিয়া ব্যক্তিত্ব ও ক্লাবের প্রায় সকল নির্বাহী সদস্য উপস্থিত ছিলেন। এতে আরো বক্তব্য রাখেন, সাবেক প্রেসিডেন্ট মুহিব চৌধুরী, দুই সাবেক সেক্রেটারী যথাক্রমে নজরু ইসলাম বাসন ও আবদুস সাত্তার।

 

Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *