লন্ডন হাইকমিশনের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস উদযাপন


Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

সত্যবাণী রিপোর্ট: গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নুর বলেছেন, সুনাগরিক তৈরীর জন্যেই বঙ্গবন্ধুর শিক্ষা ও আদর্শ প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে পৌছে দিতে হবে। আর এটি করতে পারলে সোনার বাংলা শুধু স্লোগানে নয়, বাস্তবেই দৃ্শ্যমান হবে।
শুক্রবার জাতীর জনকের ৯৮তম জন্মদিন ও জাতীয় শিশু কিশোর দিবস উপলক্ষে লন্ডনের বাংলাদেশ হাইকমিশন আয়োজিত আলোচনা অনুষ্ঠানে তিনি এ মন্তব্য করেন।
IMG_2030সংস্কৃতি মন্ত্রী বলেন, জাতীর জনকের দীর্ঘ সংগ্রামী জীবন, অসাম্প্রদায়িক চেতনা ও মানুষকে ভালোবাসার ক্ষমতা, প্রতিটি বিষয়ই শিশু কিশোরদের অনুসরণ করা উচিত। উপরোক্ত গুনের সমন্বয়ই শুধু দেশের ভবিষ্যত যোগ্য নেতৃত্ব তৈরী করতে পারে। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু শিশুদের খুব ভালবাসতেন এবং এই দিনটির মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর শিক্ষা ও তাঁর আদর্শ শিশুদের মধ্যে পৌছে দিতে হবে।
অনুষ্ঠানে মূল আলোচক ছিলেন প্রবীণ সাংবাদিক, সাহিত্যিক আব্দুল গাফফার চৌধুরী।
এর আগে জাতীর জনকের পৃতিকৃতিতে পুস্পমাল্য অর্পণের মাধ্যমে দিবসের সূচনা করেন হাইকমিশনার নাজমুল কাওনাইন। দিনটি উপলক্ষে মহামান্য রাষ্ট্রপতি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, মাননীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রী এবং মাননীয় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর বাণী পাঠ করে শোনানো হয় অনুষ্ঠানে।
বিশিষ্ট সাংবাদিক, কলামিষ্ট আবদুল গাফফার চৌধুরী তাঁর বক্তৃতায় বলেন, বঙ্গবন্ধু শারিরীকভাবে আমাদের মাঝ থেকে চলে গেলেও শক্তি ও ভরসা হিসেবে আজও তিনি বেঁচে আছেন। তাঁর আদর্শ ও কর্মময় জীবন থেকে দীক্ষা নিয়ে ত্যাগ ও দেশ গড়ার মন্ত্রে দীপ্ত হতে হবে দেশের প্রতিটি নাগরিককে।
হাইকমিশনার মোঃ নাজমুল কাওনাইন হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে শ্রদ্ধা জানিয়ে বলেন, জাতির পিতার হত্যার পর দেশে দূর্যোগ নেমে এসেছিল। সেই দুর্যোগ এখন আমরা কাটিয়ে উঠছি। তিনি স্বাধীনতা বিরোধী চক্রের সকল ষড়যন্ত্র প্রতিহত করতে বঙ্গবন্ধু কন্যার নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার জন্যে সকলের প্রতি আহবান জানান। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর আদর্শে আমাদের শিশুদের দেশপ্রেমে উদ্ভুদ্ধ করতে হবে।

জাতির পিতার বর্ণাঢ্য ও কর্মময় জীবনের উপর আমন্ত্রিত অতিথিবর্গের মধ্যে আরও বক্তব্য রাখেন, যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সভাপতি সুলতান শরীফ, সিনিয়র সহসভাপতি জালাল উদ্দিন আহমেদ, অধ্যাপক আবুল হাশেম ও যুক্তরাজ্য মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী খালেদা কোরাইশী।
অনুষ্ঠানে জাতির পিতার জীবনীর উপর প্রদর্শিত হয় একটি তথ্যচিত্র।
সবশেষে কাটা হয় বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনের কেক।
অনুষ্ঠানে যুক্তরাজ্য প্রবাসী গণ্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ, সাংষ্কৃতিক ব্যক্তিত্ব, বাংলা প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ এবং হাইকমিশনের সকল কর্মকর্তা ও কর্মচারী উপস্থিত ছিলেন।
১৭ মার্চ’২০১৭, ১৬:৫০ জিএমটি

Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *