মসজিদে নববীর পাশে অসহায় প্রবাসীর মানবেতর জীবনযাপন


Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

নিউজ ডেস্ক
সত্যবাণী

সৌদি আরবঃ পঙ্গুত্ব নিয়ে ছয় মাস ধরে মদিনায় মসজিদে নববীর পাশে খোলা আকাশের নীচে অনাহারে,অর্ধাহারে মানবেতর জীবনযাপন করছেন প্রবাসী সুমন। অর্থাভাবে চিকিৎসা নিতে না পারায় শরীরের অক্ষমতা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে।দেশেও ফেরত যেতে পারছেন না অসহায় সুমন।

জামালপুরের সরিষাবাড়ি উপজেলার পুঁথিয়ারপুর ইউনিয়ন ভুগার পাড়ার মাউসের আলীর ছেলে সুমন আলী।তিনি জানান, জীবিকার তাগিদে ১১ মাস পূর্বে ফ্রি ভিসায় সৌদি আরবের রাজধানী রিয়াদে এসে তিন মাস পর আকামা হাতে পান তিনি। কর্মের সন্ধানে মদিনায় গিয়ে একটি আবাসিক হোটেলে কাজ পেয়ে কয়েক দিন কাজ করার পর হঠাৎ অসুস্থ্য হয়ে পড়েন। এ কারণে কর্মস্থল থেকে তাকে বের করে দেয় কতৃপক্ষ। সেই থেকে এখন পর্যন্ত বিনা চিকিৎসায় দিন পার করছেন।

মদিনার কয়েকজন প্রবাসীর পরামর্শে মদিনা বাংলাদেশ হজ মিশনে হাজীদের চিকিৎসা সেবায় নিয়োজিত চিকিৎসক দলের কাছে চিকিৎসা সেবা ও ঔষধের আবেদন করেও প্রত্যাখ্যাত হয়েছেন বলে দুঃখ প্রকাশ করেন সুমন। পরে জেদ্দাস্থ বাংলাদেশ কস্যুলেটের শ্রম উইং এ যোগাযোগ করে কোন সহায়তা না পেয়ে সাধারণ প্রবাসীদের কাছে সাহায্যের হাত বাড়ান।সুমনকে দেশে পাঠাতে প্রবাসীরা তার কফিলের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি ৩ হাজার রিয়াল দাবি করেন। এক মিশরীয় ও আরেক বাংলাদেশী আড়াই হাজার রিয়াল ব্যবস্থা করে পাঠালে কফিল তাকে দেশে যাওয়ার জন্য এক্সিট/রি এন্ট্রি দিতে রাজি হন। তাকে দেশে পাঠাতে বিমানের টিকেট ব্যবস্থা করার আগ্রহ জানিয়েছেন মদিনার আরও কয়েকজন প্রবাসী বাংলাদেশি ।

সুমন আলী বলেন,যেকোনো ভাবে দেশে ফিরতে চাই, পরিবারের জন্য বাঁচতে চাই।চিকিৎসা সহায়তা ও দেশে ফেরার জন্য বাংলাদেশ সরকারের কাছে আকুল আবেদন জানিয়েছেন তিনি।জটিল রোগে আক্রান্ত হয়ে অতিরিক্ত ব্যথা,যন্ত্রণায় দিনে দিনে শারীরিক অবনতি হচ্ছে সুমনের।দুটি পা পঙ্গু হয়ে যাচ্ছে।মদিনা প্রবাসী সংবাদ কর্মী দেলোয়ার হোসেন সুমন বলেন, মানুষ মানুষের জন্য জীবন জীবনের জন্য একটু সহানুভূতি কি পেতে পারেনা ও বন্ধু। কতো প্রবাসী ব্যবসায়ী বিত্তবান ব্যক্তি আছেন কেউ কি পারেননা সুমন আলীকে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিতে।

Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *