বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের মালিকানা বুঝে নিল বাংলাদেশ


Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

নিউজ ডেস্ক
সত্যবাণী

ঢাকাঃ উৎক্ষেপণের ছয় মাসের মাথায় বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ এর মালিকানা ও নিয়ন্ত্রণ সম্পূর্ণভাবে বুঝে পেয়েছে বাংলাদেশ।

শুক্রবার সন্ধ্যায় নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ফ্রান্সের কোম্পানি তালেস অ্যালেনিয়া স্পেস দেশের প্রথম এ স্যাটেলাইটের মালিকানার কাগজপত্র বাংলাদেশের কাছে হস্তান্তর করে।এখন থেকে এই স্যাটেলাইটের রক্ষণাবেক্ষণ,পরিচালনাসহ সব দায়িত্ব বাংলাদেশের।রাজধানীর বাংলামোটরে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেডের (বিসিএসসিএল) কার্যালয়ে ফ্রান্সের ওই কোম্পানির প্রোগ্রাম ম্যানেজার জিল অবাদিয়া বিটিআরসির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জহুরুল হকের কাছে ‘ট্রান্সফার অব টাইটেল’ হস্তান্তর করেন।পরে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তা হস্তান্তর করেন বিসিএসসিএলের চেয়ারম্যান শাহজাহান মাহমুদের কাছে।এ সময় ডাক,টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার,ডাক ও টেলিযোগাযোগ সচিব শ্যাম সুন্দর সিকদার,বাংলাদেশে নিযুক্ত ফ্রান্সের রাষ্ট্রদূত ম্যারি আনিক রোর্ডিন উপস্থিত ছিলেন।

এ বছরের ১২ মে যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডার কেনেডি স্পেস সেন্টার থেকে সফলভাবে উৎক্ষেপণ করা হয় বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১।নিজ কক্ষপথ ১১৯ দশমিক ১ ডিগ্রিতে পৌঁছানোর পর এটির ইন অরবিট টেস্ট (আইওটি)সহ নানা ধরনের পরীক্ষা-নিরীক্ষা সবই সম্পন্ন হয়েছে।এর মধ্যে সেপ্টেম্বরে ঢাকায় অনুষ্ঠিত সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ সরাসরি সম্প্রচার করার পরীক্ষাতেও এটি সফলতা দেখিয়েছে।পরে স্যাটেলাইটের মাধ্যমে দুবাইতে এশিয়াকাপ ক্রিকেটের সম্প্রচারসহ আরও কিছু পরীক্ষা-নিরীক্ষাও করেছে বাংলাদেশ টেলিভিশন। একইসঙ্গে অন্য কয়েকটি বেসরকারি টেলিভিশনের সঙ্গেও বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে।অনুষ্ঠানে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেন,আজকের দিনটি দেশের মানুষের জন্য স্মরণীয় দিন।তলাহীন ঝুড়ি হিসেবে যে দেশ আখ্যায়িত হয়েছিল সে দেশ এখন স্যাটেলাইটের মালিক এটি সবার জন্য গর্ব করার বিষয়।তিনি বলেন,এ স্যাটেলাইট কতদিনে লাভজনক হবে বা কতোটা সেবা পাওয়া যাবে তার চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে এটি বাংলাদেশের একটি অর্জন,একটি গর্বের বিষয়।

বিসিএসসিএল চেয়ারম্যান শাহজাহান মাহমুদ বলেন,আজ থেকে বাংলাদেশ বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের প্রকৃত মালিক হল।২০০৯ সাল থেকে দীর্ঘ এক যাত্রার শেষ হল এর মাধ্যমে।তিনি জানান,স্যাটেলাইটের ৪০টি ট্রান্সপন্ডারের মধ্যে ২০টি দেশের মধ্যে ব্যবহার করে বাকি ২০টি ভাড়া দেওয়া হবে বিদেশে।শাহজাহান মাহমুদ বলেন,আমাদের যে টাকা খরচ হয়েছে,খুব কম সময়ে তা উঠে আসবে, আগামী দুই থেকে তিন বছরের মধ্যে স্টক এক্সচেঞ্জে যাব বলে আশা করি।’প্রসঙ্গত,সরকার ২০১৫ সালে ‘বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট প্রকল্প গ্রহণ করে এবং এটি নির্মাণে একই বছরের নভেম্বরে ফ্রান্সের তালিস অ্যালেনিয়া কোম্পানির সঙ্গে ২৪৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের চুক্তি স্বাক্ষর করে।স্যাটেলাইটের জন্য মোট ব্যয় হয় ২ হাজার ৯৬৭ কোটি টাকা।

এ স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের মধ্য দিয়ে বিশ্বের ৫৭তম দেশ হিসেবে নিজস্ব স্যাটেলাইটের মালিক হয় বাংলাদেশ।স্যাটেলাইটটি নিয়ন্ত্রণের জন্য ইতিমধ্যেই গাজীপুরের জয়দেবপুরে এবং রাঙামাটির বেতবুনিয়ায় একটি করে নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে।বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের মাধ্যমে ডাইরেক্ট-টু-হো (ডিটিএইচ) ভিডিও সার্ভিস,ই-লার্নিং, টেলি-মেডিসিন,পরিবার পরিকল্পনা,কৃষি খাতসহ দুর্যোগ উদ্ধারে ভয়েস সার্ভিসের জন্য সেলুলার নেটওয়ার্কের কার্যক্রম এবং এসসিএডিএ,এওএইচও-এর ডাটা সার্ভিসের পাশাপাশি বিজনেস-টু-বিজনেস (ভিসেট) পরিচালনা আরো সহজতর হবে।স্যাটেলাইটে নিজস্ব ভিস্যাট থাকবে যার মাধ্যমে ব্যাংক ও অন্যান্য করপোরেট প্রতিষ্ঠানগুলো নিজস্ব নেটওয়ার্কের মাধ্যমে ভয়েস,ডাটা ও ইন্টারনেট সেবা নিতে পারবে।

Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *