ছুরিকাঘাতে নিহত জামানুরের জানাজা ও দাফন সম্পন্ন


Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

কমিউনিটি করেসপন্ডেন্ট
সত্যবাণী

লন্ডন: নিহত হওয়ার একমাস পর শেষ শয্যায় শায়িত হলেন গত ১১ এপ্রিল পূর্ব লন্ডনের মাইলএন্ডের ওয়েগার ষ্ট্রীটে ছুরিকাঘাতে নিহত বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত তরুণ সৈয়দ জামানুর ইসলাম। শুক্রবার ১২ই মে বাদ জুমআ ইষ্ট লন্ডন মসজিদে নামাজে জানাজা শেষে কমিউনিটির বিপুল সংখ্যক মানুষের উপস্থিতিতে তাকে সমাহিত করা হয়েছে লন্ডনের অন্যতম বৃহৎ মুসলিম কবরস্থান গার্ডেন অব পিস-এ। এর আগে ইষ্ট লন্ডন মসজিদে অনুষ্ঠিত জামানুরের নামাজে জানাজায় অংশ নেন সাংবাদিক ও কমিউনিটির নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিবর্গসহ দুর দুরান্ত থেকে আগত শত শত মানুষ। উপস্থিত অনেকেই এসময় তাকে একনজর দেখতে চাইলে মরদেহের মূখ দেখার সুযোগ দেয়া হয়নি কাউকে। জানাজা শুরুর আগে প্রয়াত জামানুরের পরিবারের পক্ষে সংক্ষিপ্ত আবেগপ্রবণ বক্তব্য রাখেন তার চাচা জিতু চৌধুরী। তিনি জামানুরের আত্মার শান্তি কামনায় সকলের দোয়া প্রার্থনা করে বলেন, আর কোন তরুণ যেন নাইফ ক্রাইমের শিকার হয়ে জামানুরের মত এ পৃথিবী ছেড়ে যেতে না হয়, পরিবারের পক্ষ থেকে এটিই সৃষ্টিকর্থার কাছে আমাদের প্রার্থনা।

জানাজা শেষে ছেলের মরদেহের পাশে দাড়িয়ে বাবা সৈয়দ আব্দুল মুকিত
জানাজা শেষে মরদেহের পাশে দাড়িয়ে ছেলের আত্মার মাগফেরাতের জন্য দোয়া চাইছেন জামানুরের বাবা সৈয়দ আব্দুল মুকিত

নামাজে জানাজা শেষে মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় গার্ডেন অব পিসে, আত্মীয় স্বজনের উপস্থিতিতে সেখানে শেষ শয্যায় শায়িত করা হয় তাকে।
উল্লেখ্য, গত ১১ এপ্রিল ২০ বছর বয়সী জামানুর ইসলামকে কতিপয় তরুণ তাঁর ঘর থেকে ডেকে নিয়ে এসে ছুরিকাঘাত করে হত্যা করে।হত্যাকারীরা পরিচিত বিধায় তাদের ডাকে ঘর হতে বের হতে চাইলে জামানুরের মা তাকে বের হতে নিষেধ করেন। কিন্তু মায়ের বারন অমান্য করে তাঁকে ডাকার কারন জানতে ঘর থেকে বের হওয়ার সাথে সাথেই ঐ তরুণরা ঝাপিয়ে পড়ে জামানুরের উপর, ছুরিকাঘাত করতে থাকে তাকে উপর্যোপরী। ছেলেকে ছুরিকাঘাত হতে দেখে জামানুরের মা চিৎকার করতে থাকলে আক্রমণকারীরা পালিয়ে যায়। ততক্ষনে মায়ের চোখের সামনে মৃত্যুর দিকে এগিয়ে যেতে থাকে হতভাগা জামানুর।  লোকজন জড়ো হয়ে এম্বুলেন্স ও পুলিশ কল করলে তারা এসে মুমূর্ষ অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে যান তাকে। কিন্তু ততক্ষনে সব শেষ, ডাক্তাররা মৃত ঘোষণা করেন জামানুরকে।
এই হত্যাকাণ্ডের দায়ে ১৫, ১৭ ও ১৮ বছর বয়সী তিন তরুণকে অভিযুক্ত করেছে পুলিশ। ঘটনার পর সাউথ ইয়র্কশায়ার এদের গ্রেফতার করে পুলিশ।

Share on Facebook0Tweet about this on TwitterShare on Google+0Email this to someonePrint this page

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *